প্রায় ৫৮ কোটি টাকা পাচারের অভিযোগে নাসির গ্রুপের চেয়ারম্যান নাসিরউদ্দিন বিশ্বাসসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। আজ রোববার সন্ধ্যায় রাজধানীর গুলশান থানায় মামলাটি করেন দুদকের সহকারী পরিচালক এস এম রফিকুল ইসলাম।
মামলায় নাসির গ্রুপের চেয়ারম্যান ছাড়াও প্রতিষ্ঠানটির পাঁচজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাকে আসামি করার সুপারিশ করা হয়। এ ছাড়া মানি এক্সচেঞ্জ প্রতিষ্ঠানের মালিক ও এক কর্মচারী এবং দুই হুন্ডি ব্যবসায়ীকে আসামি করার সুপারিশ করা হয়েছে।
প্রতিবেদনে যাঁদের অভিযুক্ত করা হয়েছে, তাঁরা হলেন নাসির গ্রুপের চেয়ারম্যান নাসিরউদ্দিন বিশ্বাস, মহাব্যবস্থাপক (আমদানি) মো. আলফাজ উদ্দিন, মহাব্যবস্থাপক (মার্কেটিং) মো. শামীম আহম্মেদ, মহাব্যবস্থাপক (ফাইন্যান্স ও হিসাব) মো. সিদ্দিকুর রহমান, সহকারী মহাব্যবস্থাপক (ক্রয়) মো. মোবাইদুল ইসলাম, হিসাবরক্ষক মো. শামীম, এ জে মানি এক্সচেঞ্জের মালিক সাইফুল বিশ্বাস, কর্মচারী মো. এমদাদুল, হুন্ডি ব্যবসায়ী মো. ফিরোজ আহমেদ ও তাঁর ছেলে মো. আদিল আহমেদ।
দুদক সূত্র জানায়, আমদানি করা পণ্যের প্রতিটি এলসির বিপরীতে নাসির গ্রুপ বিপুল পরিমাণ মার্কিন ডলার হুন্ডির মাধ্যমে পাচার করেছে। অনুসন্ধানে প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে প্রায় ৫৮ কোটি টাকা অবৈধভাবে পাচারের অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। তাই অর্থ পাচার (মানি লন্ডারিং) আইনে তাঁদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।
গত ২০ ডিসেম্বর দুদকের সহকারী পরিচালক এস এম রফিকুল ইসলাম ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলার সুপারিশ করে কমিশনে প্রতিবেদন জমা দেন।
২৬ ডিসেম্বর কমিশনের নিয়মিত বৈঠকে মামলার অনুমোদন দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন