default-image

ঝিনাইদহে নিখোঁজের আট দিন পর এক গৃহবধূর গলিত লাশ পাওয়া গেছে। শনিবার বিকেল পাঁচটার দিকে দক্ষিণ রামনগরের পাশে তেঁতুলবিল এলাকা থেকে লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ।

ওই গৃহবধূর নাম মৌসুমি খাতুন (২৪)। তিনি ২ জুলাই রাতে তাঁর বাবার বাড়ি থেকে নিখোঁজ হন। মৌসুমি এক সন্তানের জননী। তিনি ঝিনাইদহ সদর উপজেলার মহারাজপুর ইউনিয়নের রামনগর গ্রামের সমশের উদ্দীনের মেয়ে।

পরিবার সূত্র জানায়, পাঁচ বছর আগে কালীগঞ্জ পৌরসভার খয়েরতলা গ্রামে রোকন উদ্দীনের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল মৌসুমির। তাঁর চার বছরের এক ছেলে আছে। স্বামীর সংসারে বনিবনা না হওয়া দীর্ঘদিন ধরে বাবার বাড়িতেই বসবাস করছিলেন মৌসুমি। মাঝেমধ্যে স্বামী সেখানে আসা-যাওয়া করতেন।

নিহত মৌসুমির ভাই সুজন হোসেন জানান, ২ জুলাই এক আত্মীয় অসুস্থ থাকায় তাঁর মা চার বছরের ভাগনেকে সঙ্গে নিয়ে ওই আত্মীয়ের বাড়িতে যান। ওই দিন তাঁর বাবাও ব্যবসায়িক কাজে নোয়াপাড়া ছিলেন। বাড়িতে শুধু তাঁর বোন আর বোনজামাই ছিলেন। ৩ জুলাই তাঁর ভগ্নিপতি সকালে প্রতিবেশীদের জানান, দিবাগত রাত তিনটার পর থেকে মৌসুমিকে পাওয়া যাচ্ছে না। তিনি ঘুমিয়ে ছিলেন, ঘুম থেকে উঠে দেখেন মৌসুমি কোথাও নেই। এরপর ওই দিন ভগ্নিপতি রোকন নিজেই ঝিনাইদহ সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। পরিবারের সবাই বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেছেন। আর তাঁর ভগ্নিপতি রোকন একটি ছাগল বিক্রি করে টাকা নিয়ে স্ত্রীকে খুঁজতে যাওয়ার কথা বলে তিনিও নিখোঁজ হন।

ঝিনাইদহ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। ঘটনা সম্পর্কে এখনই বিস্তারিত বলা যাচ্ছে না।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0