গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় নিখোঁজ হওয়ার ছয় দিন পর গতকাল রোববার ভ্যানচালক ফেরদৌস মোল্লার (২৫) লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। একই দিন খুলনার রূপসা উপজেলার জাবুসা এলাকা থেকে নিখোঁজ ইজিবাইকচালক আকবর আলী শেখের (২৫) লাশ উদ্ধার করা হয়।
ফেরদৌস মোল্লা উপজেলার গিমাডাঙ্গা গ্রামের মো. আহাদ আলী মোল্লার ছেলে। ফেরদৌসের বড় ভাই শামীম মোল্লা বলেন, ১৬ ফেব্রুয়ারি প্রতিবেশী লালন ফকির মুঠোফোনে ফেরদৌসকে ডেকে নিয়ে যান। এরপর তিনি আর ফেরেননি। শুক্রবার উপজেলার বর্ণি বাঁওড় থেকে ফেরদৌসের পরনের লুঙ্গির একাংশ ও একটি রক্তমাখা প্লাস্টিকের বস্তা উদ্ধার করা হয়।
টুঙ্গিপাড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নূর হোসেন বলেন, গতকাল সকালে বাশুরিয়া গ্রামের একটি খেতে ফেরদৌসের লাশ পড়ে থাকতে দেখে এলাকাবাসী পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এ সময় এলাকাবাসী হত্যার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে একই গ্রামের বাবলু সরদারকে (৩৮) পিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।
আকবর আলী শেখের বাড়ি বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলার সাতবাড়িয়া গ্রামে। এ ঘটনায় তাঁর বাবা আবজাল শেখ রূপসা থানায় অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।
ফকিরহাট থানার ওসি আনিসুর রহমান ও রূপসা থানার ওসি মেজবাহ উদ্দিনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কয়েক মাস আগে আকবরকে তাঁর বাবা একটি ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক কিনে দেন। বাগেরহাট ও রূপসায় আকবর ইজিবাইকটি চালাতেন। ১৮ ফেব্রুয়ারি সকালে ইজিবাইকটি নিয়ে বের হয়ে তিনি আর ফেরেননি। ঘটনার পরদিন তাঁর বাবা আবজাল শেখ ফকিরহাট থানায় জিডি করেন।
পুলিশের ধারণা, দুর্বৃত্তরা ১৯ ফেব্রুয়ারি ইজিবাইকসহ অপহরণের পর আকবরকে শ্বাসরোধে হত্যা করে। এরপর রাস্তার পাশের ডোবায় লাশ ফেলে ইজিবাইকটি নিয়ে পালিয়ে যায়। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
২১ ফেব্রুয়ারি প্রথম আলোর ‘নিখোঁজ ভ্যানচালকের লুঙ্গি ও রক্তমাখা বস্তা উদ্ধার’ শিরোনামে খবর ছাপা হয়।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন