নোয়াখালী ও বগুড়ায় গত রোববার দিবাগত রাতে আওয়ামী লীগের দুই নেতা খুন হয়েছেন। দুজনেই স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি। একজন রাজনৈতিক কারণে ও অন্যজন জমি নিয়ে বিরোধের জেরে খুন হয়েছেন বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। গতকাল সোমবার তাঁদের গলা কাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। 
পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গতকাল সকালে নোয়াখালী সদর উপজেলার অভিরামপুর গ্রামের রাস্তার পাশ থেকে স্থানীয় চর মটুয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি বাবুল মিয়ার (৬২) গলা কাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।
পরিবারের দাবি, বাবুল রোববার রাত সাড়ে ১১টার দিকে স্থানীয় ওদারহাট থেকে খলিসাটোলায় গ্রামের বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় দুর্বৃত্তরা তাঁকে খুন করে। তবে এর কারণ নিশ্চিত হওয়া যায়নি।
বাবুলের ছেলে মাকছুদুর রহমান বলেন, ‘বাবা রাজনীতি করতেন। এর আগে একই কায়দায় খুন হওয়া জেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ সেলিমের খুব কাছের লোক ছিলেন তিনি। একই সন্ত্রাসী আমার বাবাকে খুন করে থাকতে পারে।’
সুধারাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন গতকাল সন্ধ্যায় প্রথম আলোকে জানান, এর রহস্য উদ্ঘাটনে পুলিশের পাশাপাশি জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) একটি দলও কাজ করছে। মামলার প্রক্রিয়া চলছে।
এদিকে অজ্ঞাতপরিচয় দুর্বৃত্তদের হামলায় বগুড়ার ধুনট উপজেলার এলাঙ্গী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শামছুল হক (৪৫) খুন হয়েছেন। তাঁর বাড়ি উপজেলার রাঙ্গামাটি ভিটাপাড়া গ্রামে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, রাঙ্গামাটি দিদারপাড়ার গ্রামের তইমুদ্দিন ও মাহফুজার রহমানের সঙ্গে একই গ্রামের মাসুদ রানার জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ ছিল। এ নিয়ে গত রোববার দুপুরে থানা চত্বরে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে দুই পক্ষের আপস হয়। কিন্তু রাত ১২টার দিকে মাসুদ রানার শ্বশুর এলাঙ্গী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শামছুল হক রাঙ্গামাটি দিদারপাড়া গ্রামে তাঁর পুরাতন বাড়ি থেকে নতুন বাড়ি রাঙ্গামাটি ভিটাপাড়া যাওয়ার সময় খুন হন। দুর্বৃত্তরা তাঁকে কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা করে। পরে হত্যাকারীরা তাঁর লাশ রাস্তার পাশে একটি ধানখেতে ফেলে রাখে। গতকাল সকাল নয়টার দিকে তাঁর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বগুড়া জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায় পুলিশ। এই ঘটনায় মাহফুজারের স্ত্রী জোসনা খাতুনকে (৪০) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নেওয়া হয়। পরে অবশ্য তাঁকে ছেড়ে দেয় পুলিশ।
ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জিয়াউর রহমান রাত আটটার দিকে জানান, এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে আরব আলী (৪৫) নামের এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন