যশোর সদর উপজেলার জগন্নাথপুর গ্রামে পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। আজ শনিবার গ্রামের পানের বরজের পাশ থেকে ওই ছাত্রীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত শিশু সুরাইয়া খাতুন(১২)। তার বাবার নাম আকর আলী। সে জগন্নাথপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ত।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বাড়ির পাশে এক শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট পড়ত সুরাইয়া। সেখানে পড়তে যাওয়ার জন্য আজ সকাল সাতটার দিকে বাড়ি থেকে বের হয় সে। কিন্তু কয়েক ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও বাড়ি না ফেরায় সুরাইয়ার পরিবারের লোকজন ও প্রতিবেশীরা তার খোঁজে বের হয়। এরপর বেলা ১১টার দিকে ওই শিক্ষকের বাড়িতে যাওয়ার পথে পানের বরজের পাশে সুরাইয়ার লাশ পড়ে থাকতে দেখে প্রতিবেশীরা। এরপর পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। দুপুর দুইটার দিকে ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ সুরাইয়ার লাশ উদ্ধার করে।

যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইনামুল হক প্রথম আলোকে বলেন, আলামত দেখে ধারণা করা হচ্ছে, শিশুটিকে ধর্ষণের পর গলায় ওড়না পেঁচিয়ে হত্যা করা হয়েছে। সুরাইয়ার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য যশোর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন