default-image

নওগাঁ সদর উপজেলায় পরকীয়ার জেরে তোফাজ্জল হোসেন ওরফে ছকু (৩৬) নামের এক যুবককে গাছের সঙ্গে বেঁধে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার হাড়িয়াগছি গ্রামে ওই যুবককে মারধরের ঘটনা ঘটে। গতকাল বুধবার রাতে নওগাঁ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়।

নিহত তোফাজ্জল হোসেন হাড়িয়াগাছি গ্রামের মোজাম্মেল হকের ছেলে।

নিহতের স্বজন ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, তোফাজ্জল হোসেন বিবাহিত। তাঁর সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে এক বিবাহিত নারীর পরকীয়ার সম্পর্ক। এর জের ধরে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে তোফাজ্জলকে গ্রামের রাস্তা থেকে দিলদার হোসেন ও সোহেল রানা ধরে নিয়ে যান। তাঁকে একটি গাছের সঙ্গে বেঁধে প্রায় দুই ঘণ্টা মারধর করা হয়। পরে ওই দুজন তাঁর বিরুদ্ধে চুরির অভিযোগ তুলে নওগাঁ সদর থানার পুলিশকে খবর দেন। রাত ৯টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তোফাজ্জলকে গুরুতর আহত অবস্থায় দেখে হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেন। পরিবারের সদস্যরা তাঁকে নওগাঁ সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। গতকাল বুধবার রাত ১টার দিকে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়।

বিজ্ঞাপন

তোফাজ্জলের চাচাতো ভাই আবদুল মান্নানের দাবি, পরকীয়া সম্পর্কের জেরে তোফাজ্জলকে হত্যা করা হয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে চুরির যে অভিযোগ করা হচ্ছে, তা একেবারে মিথ্যা।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে নওগাঁ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোহরাওয়ার্দী হোসেন বলেন, নওগাঁ সদর হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে তোফাজ্জলের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে একটি হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে। তোফাজ্জলের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে সন্দেহভাজন আসামিরা বাড়ি ছেড়ে পালান। তাঁদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

মন্তব্য পড়ুন 0