রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলায় গত শনিবার আকাশ উল্লাহ (১৪) নামের এক শিশুকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। আকাশ বলছে, পারিবারিক বিরোধের জের ধরে তাকে পিটিয়েছেন তার মামার নিযুক্ত লোকজন।

আকাশ উল্লাহ উপজেলার কসবামাজাউল ইউনিয়নের সূবর্ণখোলা গ্রামের মোকারম হোসেনের ছেলে। সে পড়ে কসবামাজাউল এ এইচ উচ্চবিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণিতে।

আকাশ উল্লাহকে শনিবার রাতে পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন আকাশ গতকাল রোববার দুপুরে প্রথম আলোকে বলে, শনিবার সে ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার বড়িয়া গ্রামে ফুপুর বাড়িতে ছিল। বিকেলে এ বাড়ি থেকে তাকে ডেকে আনেন পূর্বপরিচিত কসবামাজাউল ইউনিয়নের নটাভাঙ্গা গ্রামের মুক্তি খান ও লতা খান। একপর্যায়ে পাংশার কলিমহর ইউনিয়নের হোসেনডাঙ্গা গ্রামের মাঠের মধ্যে নিয়ে তাকে মারধর করেন তাঁরা। এরপর তাঁরা ছুরি বের করে হুমকি দেন, বিষয়টি কাউকে জানালে তাকে হত্যা করা হবে। আকাশ বলছে, পারিবারিক বিষয় নিয়ে সম্প্রতি তার বাবার সঙ্গে মামা কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলার শহীদুল ইসলামের মনোমালিন্য হয়। তাকে মারধরের পেছনে মামাই কলকাঠি নেড়েছেন।

অভিযোগের বিষয়ে মামা শহীদুল ইসলামের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। আর অভিযুক্ত মুক্তি খানের মুঠোফোন নম্বরটি বন্ধ
পাওয়া যায়।

আকাশকে তার ফুপাতো ভাই সোলেমান হোসেন ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। সোলেমান বলেন, এ ঘটনায় তিনি থানায় লিখিত অভিযোগের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

পাংশা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোফাজ্জেল হোসেন বলেন, শিশুকে মারধরের বিষয়ে কেউ অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন