default-image

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার সাধনপুর ইউনিয়নের লটমণি পাহাড়ি এলাকায় ‘জঙ্গি প্রশিক্ষণ ক্যাম্প’ খুঁজে পেয়েছে র‍্যাব। সংস্থাটির দাবি, তারা সেখান থেকে অস্ত্রগুলি ও প্রশিক্ষণসামগ্রীসহ পাঁচ ‘জঙ্গি’কে আটক করেছে। র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) দাবি, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওই এলাকায় গতকাল শনিবার বিকেল পাঁচটা থেকে আজ রোববার ভোর পর্যন্ত অভিযান চালায় র‍্যাব। এ সময় ওই পাঁচজনকে আটক করা হয়। তাঁদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে পাহাড়ে মাটির নিচে পুঁতে রাখা কয়েকটি প্লাস্টিকের ড্রাম থেকে এসব অস্ত্রগুলি ও প্রশিক্ষণসামগ্রী উদ্ধার করা হয়।

দুপুরে ঘটনাস্থলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাব সদর দপ্তরের লিগ্যাল ও মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ জানান, আটক হওয়া ব্যক্তিরা হলেন ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গার মোবাশ্বর হোসেন (১৭), ময়মনসিংহের আবদুল খালেক হুরাইরা (২১), টাঙ্গাইলের গোপালপুরের আমিনুল ইসলাম হামজা (২২) ও মির্জাপুরের হাবিবুর রহমান (১৯) এবং গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়ার আমির হোসেন (২৫)। তবে সংবাদ সম্মেলনে ওই পাঁচ ব্যক্তিকে হাজির করা হলেও তাঁদের সঙ্গে সাংবাদিকদের কথা বলতে দেওয়া হয়নি।

কমান্ডার মুফতি মাহমুদের তথ্য, উদ্ধার হওয়া অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে তিনটি একে-২২ রাইফেল, ছয়টি বিদেশি পিস্তল, একটি রিভলবার, ছয়টি একে-২২ রাইফেলের ম্যাগাজিন, দুটি চাপাতি এবং ৭৫১টি গুলি। প্রশিক্ষণসামগ্রীর মধ্যে রয়েছে ৩৮টি ট্র্যাক স্যুট, নয় জোড়া জুতা ও কয়েকটি মোটা রশি। এ ঘটনায় আটক ব্যক্তিদের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। উদ্ধার করা অস্ত্র ও আটক ব্যক্তিদের বাঁশখালী থানায় হস্তান্তর করে মামলা করা হবে।

এদিকে চট্টগ্রাম র‍্যাব-৭-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল মিফতাহ উদ্দিন আহমেদ অস্ত্র উদ্ধারের ওই এলাকাটি সাংবাদিকদের ঘুরে দেখান। ওই পাহাড়ের আশপাশের দুই কিলোমিটারের মধ্যে কোনো জনবসতি নেই। তবে ওই জায়গায় গরু, ভেড়া ও ছাগলের খামার রয়েছে।

লে. কর্নেল মিফতাহ উদ্দিন আহমেদের তথ্য, মৌলভী আজিজ ও মৌলভী মোবারক নামের দুই ব্যক্তির এ খামারটি ছিল। এ ঘটনার পর থেকে তাঁরা নিখোঁজ রয়েছেন। তবে অভিযানকালে ওই খামারের কাউকে আটক করা যায়নি। দুর্গম পাহাড় হওয়ায় সেখানে মানুষ তেমন চলাচল করে না।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন