default-image

পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া উপজেলার পৈকখালী গ্রামের খাল থেকে উদ্ধার মাথাবিহীন লাশের পরিচয় মিলেছে। নিহত ব্যক্তির নাম আলতাফ হোসেন (৪০)। বুধবার রাতে ভাই ফোরকান হাওলাদার ও বোন খাদিজা বেগম তাঁর লাশ শনাক্ত করেন। আলতাফ উপজেলার উত্তর পৈকখালী গ্রামের বাসিন্দা।
পুলিশ, স্থানীয় লোকজন ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, আলতাফ হোসেনের দুই স্ত্রী। দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে তিনি চট্টগ্রামে থাকতেন। তাঁর বিরুদ্ধে হত্যাসহ একাধিক মামলা আছে। সম্প্রতি তিনি উপজেলার চড়াইল গ্রামে ডাকাতি এবং ইউসুফ মোল্লা নামের এক ব্যক্তিক গুলি করে হত্যা মামলায় আদালতে হাজিরা দিতে চট্টগ্রাম থেকে গ্রামের বাড়িতে যান। সোমবার সকালে তিনি উপজেলার পৈকখালী গ্রামে প্রথম স্ত্রীর বাবার বাড়ি থেকে চট্টগ্রামের উদ্দেশে বের হন। পরের দিন মঙ্গলবার সকালে পৈকখালী গ্রামের খালে মাথাবিহীন একটি লাশ দেখতে পান গ্রামবাসী। বুধবার রাতে লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়। পরে পরিবারের সদস্যরা তাঁর লাশ শনাক্ত করেন।

বিজ্ঞাপন

এলাকাবাসীর ভাষ্য, আলতাফ ডাকাতিসহ অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত ছিলেন। পূর্বশত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষের লোকজন তাঁকে সোমবার রাতে কুপিয়ে হত্যা করে মাথা কেটে লাশ খালে ফেলে যান।
নিহত আলতাফ হোসেনের ভাই ফোরকান হাওলাদার বলেন, ‘আমরা ভেবেছি ভাই চট্টগ্রামে চলে গেছেন। তবে খোঁজ নিয়ে জানতে পারি সে চট্টগ্রামে যায়নি। এরপর লাশ দেখে ভাইকে শনাক্ত করি। পূর্বশত্রুতার জের ধরে কেউ ভাইকে কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা করতে পারে।’
ভান্ডারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম মাকসুদুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে থানায় একটি হত্যা মামলা হয়েছে। পুলিশ নিহতের দুই স্ত্রীর পরিবারের সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। হত্যার রহস্য উদ্‌ঘাটনের চেষ্টা চলছে।

মন্তব্য পড়ুন 0