রাজধানীর মতিঝিলে পুলিশের ওপর হামলা চালিয়ে আসামিকে পালিয়ে যেতে সহায়তা করার ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে চারজনকে আটক করেছে। আজ শুক্রবার দুপুরে আসামি ধরতে গেলে এ হামলা হয়।

আটক ব্যক্তিরা হলেন, মাহবুবুল হক, মাসুদ, শরীফুল ইসলাম ও আবুল কালাম। এর মধ্যে মাহবুবুল ও মাসুদ ছাত্রলীগের কর্মী বলে স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন। আটক মাহবুবুলের বিরুদ্ধে যুবলীগ দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক রিয়াজুল হক খান মিল্কী হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ আছে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও মতিঝিল থানার পুলিশের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আজ বেলা তিনটার দিকে মতিঝিলের এজিবি কলোনি এলাকায় বোচা বাবু নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করতে যান মতিঝিল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) শফিউল আযমসহ পুলিশের কয়েকজন সদস্য। বোচা বাবুর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ছিল। তাঁকে গ্রেপ্তার করার পরই সেখানে থাকা কয়েকজন এসে বোচা বাবুকে ছাড়িয়ে নেওয়ার জন্য পুলিশের ওপর হামলা করেন। এ সুযোগে বোচা বাবু পালিয়ে যান। এ ঘটনা জানার পর বিপুলসংখ্যক পুলিশ ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে ওই চারজনকে আটক করে। আটক আবুল কালাম আসামি বোচা বাবুর বাবা বলে জানা গেছে।

তবে এ ঘটনা সম্বন্ধে জানতে চাইলে এসআই শফিউল বলেন, ‘কই হামলা তো হয়নি। একটি চাঁদাবাজির মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা থাকায় বোচা বাবুকে গ্রেপ্তার করতে গিয়েছিলাম। পরে সে ঝাপটা মেরে পালিয়ে যায়।’ হামলা না হলে ওই চারজনকে আটক করার কারণ জানতে চাইলে এসআই শফিউল হেসে উঠে বলেন, ‘তা আমি জানি না।’
তবে মতিঝিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফরমান আলী প্রথম আলোকে হামলার কথা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, আটক চারজনের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন