নড়াইল সদর উপজেলায় পুলিশ সেজে দুর্বৃত্তরা একটি বাড়িতে হামলা চালিয়েছে। এ সময় তাদের অস্ত্রের আঘাতে এক নারী ও তাঁর ১১ বছর বয়সী ছেলে গুরুতর আহত হয়। গত মঙ্গলবার উপজেলার ধোন্দা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
আহত দুজন হলেন ইরানী বেগম (৩০) ও তাঁর ছেলে বাবু। তাঁদের প্রথমে নড়াইল সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে সেখান থেকে বাবুকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়।
ইরানী বেগম জানান, মঙ্গলবার রাত ১২টার পর কয়েকজন অপরিচিত মানুষ তাঁর স্বামীর নাম ধরে ডাকাডাকি করে। তাঁর স্বামী মালয়েশিয়াপ্রবাসী। স্বামী বাড়িতে নেই—এ কথা জানালে তারা দরজা খুলে দিতে বলে। পরে তিনি বাইরে বেরিয়ে দেখেন পুলিশের পোশাকে তিন-চারজন দাঁড়িয়ে আছে। ভয়ে তিনি চিৎকার দিলে একজন তাঁর বুকে ধরালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে। রক্ত দেখে তাঁর ছেলে একজনকে জাপটে ধরলে আরেকজন বাবুর বুকে ছুরি ঢুকিয়ে দেয়। পরে ইরানী ও বাবুর চিৎকারে প্রতিবেশীরা ছুটে এলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। এলাকাবাসী দ্রুত তাঁদের সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। গত বুধবার সকালে বাবুকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।
সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক আ ফ ম মশিউর রহমান জানান, ইরানী বেগমের অবস্থা এখন একটু ভালো।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন