default-image

বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের অবরোধ কর্মসূচির মধ্যে গাইবান্ধা সদর উপজেলা ও বরিশালের গৌরনদী উপজেলায় পেট্রলবোমা হামলায় নয়জন নিহত হয়েছেন। জোটের অবরোধ কর্মসূচির ৩৩তম দিন আজ শনিবার। এই কর্মসূচিতে সহিংসতায় এখন পর্যন্ত নিহত হয়েছেন ৭৮ জন। আহত সহস্রাধিক।

গাইবান্ধা: সদর উপজেলায় পুলিশি পাহারার মধ্যে যাত্রীবাহী একটি বাসে পেট্রলবোমা হামলা হয়। এতে দুই শিশুসহ ছয় যাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। দগ্ধ হয়েছেন অন্তত ২৮ জন। এ ঘটনায় ১১ জনকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার রাত ১১টার দিকে শহরের অদূরে তুলসীঘাট এলাকায় গাইবান্ধা-পলাশবাড়ী সড়কে যাত্রীবাহী বাসে এ হামলার ঘটনাটি ঘটে।

পেট্রলবোমার আগুনে পুড়ে ঘটনাস্থলে মারা যান চারজন যাত্রী। তাঁরা হলেন সৈয়দ আলী (৪২), হালিমা বেগম (৪০), সুমন মিয়া (২২) ও শিল্পী রানী (১০)। চারজনের মরদেহ গাইবান্ধা সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। দগ্ধ যাত্রীদের মধ্যে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আজ শনিবার সকাল সাতটার দিকে সুজন (১৩) নামের এক শিশু এবং বেলা সোয়া তিনটার দিকে শিশুটির মা সোনাভান (৩৩) মারা যান। তিনি ঢাকার মেসে গৃহকর্মী হিসেবে কাজ করতেন। তাঁর দেহের ৮০ শতাংশ পুড়ে গিয়েছিল। নিহত লোকজনের সবার বাড়ি জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায়।

গাইবান্ধায় বাসে পেট্রলবোমায় নিহত ৫হাসপাতালের পরিচালক আবদুল কাদের খান প্রথম আলোকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে সোনাভানের স্বামী দিনমজুর তারা মিয়া (৪০) ও মেয়ে তানজিনা (৮)। তাদের শরীরের ৭/৮ শতাংশ পুড়ে গেছে। সোনাভান-তারামিয়া দম্পতির আরও দুই সন্তান ঢাকায় থাকেন। তাঁরা পোশাক কারখানায় কাজ করেন।

গাইবান্ধা সদর থানার পুলিশ ও দগ্ধ যাত্রীদের কাছ থেকে জানা যায়, সুন্দরগঞ্জ উপজেলার সীচা বাজার থেকে গতকাল রাত নয়টার দিকে নাপু পরিবহনের একটি বাস ৪০-৫০ জন যাত্রী নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হয়। বাসটি গাইবান্ধা শহরের কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে আসার পর সেখান থেকে পুলিশ পাহারায় অন্তত ২৫-৩০টি যানবাহনের সঙ্গে আবার ঢাকার পথে রওনা দেয়। রাত সোয়া ১১টার দিকে তুলসীঘাট এলাকায় বাসটিতে পেট্রলবোমা ছোড়ে দুর্বৃত্তরা। এতে বাসটিতে আগুন ধরে যায়। আগুনে এ পর্যন্ত ছয় যাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। দগ্ধ যাত্রীদের মধ্যে ২০ জনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। পেট্রলবোমা হামলার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। গাইবান্ধা ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিটও সেখানে যায়। পরে বাসের আগুন নেভানো হয়।

গাইবান্ধার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোশাররফ হোসেন বলেন, পুলিশ পাহারার পরও দুর্বৃত্তরা এই হামলা চালায়। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের ধরতে অভিযান চলছে।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাজিউর রহমান জানান, এখন পর্যন্ত ১১ জনকে আটক করা হয়েছে।

বরিশাল: গৌরনদী উপজেলার দক্ষিণ মাহিলারা এলাকায় একটি ট্রাকে পেট্রলবোমা হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। এতে তিনজন নিহত হয়েছেন। আজ ভোররাত পৌনে চারটার দিকে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কে এ ঘটনা ঘটে। ঢাকা মেট্রো ট-১৬-৯৩২৫ নম্বরের ট্রাকটি ফরিদপুর থেকে পোলট্রি ফিড বোঝাই করে বরিশালে ফিরছিল। পেট্রলবোমা হামলায় ট্রাকের সামনের অংশ পুড়ে গেছে।

নিহত ব্যক্তিরা হলেন ট্রাকচালক ইজাজুল (৪২), চালকের সহকারী মুন্নু (৩২) ও চালকের শ্বশুর। আনুমানিক ৬০ বছর বয়সী এই ব্যক্তির নাম জানা যায়নি। তাঁদের সবার বাড়ি ফরিদপুরে বলে জানিয়েছেন ট্রাকের মালিক মো. রিপন মিয়া। তিনজনের লাশ উদ্ধার করে গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেছে পুলিশ।

বরিশাল-১ আসনের সাংসদ আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ, বরিশালের পুলিশ সুপার এ কে এম এহসান উল্লাহ ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। গৌরনদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাজ্জাদ হোসেন এই হামলার তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

গত বছরের ৫ জানুয়ারির ‘একতরফা’ নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত আওয়ামী লীগ সরকারের পদত্যাগের দাবিতে এ বছরের ৬ জানুয়ারি থেকে টানা অবরোধ কর্মসূচি চালিয়ে আসছে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট। এর দুই দিন আগে সহিংসতা শুরু হয়।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন