default-image

বিজ্ঞানমনস্ক লেখক ও ব্লগার অভিজিৎ রায়কে জামায়াতসহ সাম্প্রদায়িক জঙ্গিগোষ্ঠী হত্যা করেছে বলে অভিযোগ করেন তাঁর বাবা অজয় রায়। আজ শুক্রবার ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গের সামনে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এ অভিযোগ করেন। অভিজিতের মরদেহ মর্গে রয়েছে।
শিক্ষাবিদ অজয় রায় সাম্প্রদায়িক জঙ্গিগোষ্ঠীর প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন, এরাই বাসে আগুন দেয়, পেট্রলবোমা হামলার মতো ঘটনা ঘটাচ্ছে। হতভাগ্য পিতা হিসেবে শেখ হাসিনা সরকারের কাছে তিনি অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।
পুলিশের কথা উল্লেখ করে অজয় রায় বলেন, এই ঘটনায় যারা জড়িত, পুলিশের কাছে সব তথ্য রয়েছে। তাদের ধরতে ২৪ ঘণ্টার বেশি সময় লাগবে না। এ জন্য প্রয়োজন সরকারের সহযোগিতা।
অভিজিৎকে দেশে আসতে মানা করা হয়েছিল বলে জানান তাঁর বাবা। তিনি বলেন, ‘তাকে বলেছিলাম বাংলাদেশের পরিস্থিতি এখন তোমার জন্য সুখকর নয়। কিন্তু সে তার মাকে দেখতে এবং এবারের বইমেলায় তার দুটো বই প্রকাশিত হওয়ায় সে দেশে আসে।’

অভিজিৎকে হুমকি দেওয়ার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে অজয় রায় বলেন, ‘দেশে আসার পর যত দূর জেনেছি, হুমকি আসেনি। তবে দেশে আসার আগে তাকে হুমকি দেওয়া হয়েছিল।’

গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে অমর একুশে গ্রন্থমেলা থেকে ফেরার পথে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় খুন হন অভিজিৎ। তাঁর ওপর দুর্বৃত্তদের হামলার সময় সঙ্গে ছিলেন স্ত্রী রাফিদা আহমেদ। স্বামীকে বাঁচাতে গিয়ে দুর্বৃত্তদের হামলায় তিনিও গুরুতর আহত হন। তাঁর মাথায় চাপাতির চারটি আঘাত লেগেছে। তাঁর বাঁ হাতের বৃদ্ধাঙ্গুল বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। বর্তমানে তিনি স্কয়ার হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) আছেন।

অভিজিতের পরিবারের এক সদস্যের তথ্যমতে, গতকাল রাত সাড়ে তিনটায় রাফিদাকে ঢাকা মেডিকেল থেকে স্কয়ার হাসপাতালে নেওয়া হয়। তাঁর অবস্থা এখন স্থিতিশীল।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন