ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে অ্যাসিড-সন্ত্রাসের শিকার কলেজছাত্রী (১৭) বখাটেদের হুমকির কারণে নিজের বাড়ি ফিরতে পারছে না বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ছাত্রীটি এখন গৌরীপুর উপজেলায় তার নানাবাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে।
সরেজমিনে ছাত্রীর বাড়িতে খোঁজ করলে তার বাবা-মা ও পরিবারের অন্য কাউকে পাওয়া যায়নি। পরে তাদের এক আত্মীয়ের মাধ্যমে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে ছাত্রীর বাবা অভিযোগ করেন, অ্যাসিড নিক্ষেপের মামলার আসামি শামীম মিয়া মাঝেমধ্যে বাড়িতে এসে হুমকি দিচ্ছে। মামলা তুলে না নিলে পরিণতি খারাপ হবে বলছে। এই ভয়ে তিনি মেয়েকে নানাবাড়িতে রেখেছেন।
ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী বলে, শামীমের কারণে সে বাড়ি ফিরে আসতে সাহস পাচ্ছে না। এতে তার লেখাপড়ার ক্ষতি হচ্ছে। আসন্ন এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নেওয়া নিয়েও সে চিন্তিত।
প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ১৬ জানুয়ারি রাতে প্রতিবেশী শামীম মিয়া (২৫) তার মুখমণ্ডলে অ্যাসিড নিক্ষেপ করে। এতে মেয়েটির বাঁ চোখ ও বাঁ কান ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ওই রাতেই তাকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে কোনো উন্নতি না হওয়ায় একটি বেসরকারি সংস্থা তাকে রাজধানীর এসিড সারভাইভারস ফাউন্ডেশন হাসপাতালে (এএসএফ) নিয়ে চিকিৎসা করায়।
এ ঘটনায় ১৯ জানুয়ারি ওই ছাত্রীর বাবা শামীমসহ তিনজনকে অভিযুক্ত করে ঈশ্বরগঞ্জ থানায় একটি মামলা করেন।
ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আক্তারুজ্জামান বলেন, অভিযুক্তকে ধরার জন্য পুলিশ চেষ্টা করছে। হুমকি দেওয়ার ঘটনাটি অতিরঞ্জিত বলে মনে করেন তিনি।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন