সাগরপথে অবৈধভাবে মালয়েশিয়া যাওয়ার পথে চট্টগ্রাম বন্দরের জলসীমায় ইঞ্জিনচালিত নৌকা থেকে ১৫ জনকে আটক করেছেন নৌবাহিনীর চোরাচালান প্রতিরোধ দলের সদস্যরা। গত বুধবার গভীর রাতে বন্দরের বহির্নোঙর এলাকায় নিয়মিত অভিযানের সময় তাঁদের আটক করা হয়।
নৌবাহিনী সূত্র জানায়, বুধবার রাত তিনটায় বন্দর জলসীমার বহির্নোঙরে একটি নৌকার গতিবিধি দেখে সন্দেহ হয় নৌবাহিনীর চোরাচালান প্রতিরোধ দলের সদস্যদের। এরপর স্পিডবোটের সাহায্যে ধাওয়া করে নৌকা থেকে ১৫ জনকে আটক করা হয়। তাঁদের নগরের পতেঙ্গা থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। নৌকাটিও জব্দ করা হয়েছে।
পতেঙ্গা থানা সূত্রে জানা গেছে, আটক হওয়া ১৫ জনের মধ্যে ফেনীর বেলাল হোসেন, জহির ইমাম ও বাহাউদ্দিন, বগুড়ার আতাউর রহমান, মামুনুর রশীদ, রবিউল ইসলাম ও আনসার আলী, সুনামগঞ্জের দুরুদ আলম, সবুজ মিয়া ও রিপন মিয়া, নরসিংদীর আবদুল হক মিয়া, রাজবাড়ীর ফারুক খান ও মিঠু সর্দার এবং চট্টগ্রামের আনোয়ারার শাহীন ও রফিক নুর।
উদ্ধার হওয়া আতাউর রহমান সাংবাদিকদের জানান, বগুড়া থেকে গত মঙ্গলবার চট্টগ্রামে এসে একটি হোটেলে ওঠেন তিনি। পরদিন বিকেলে নৌকায় নদী (কর্ণফুলী) পার হন। রাতে তাঁদের দুটি দলকে দুটি নৌকায় তোলা হয়। আতাউর জানান, মালয়েশিয়ায় পৌঁছানোর পর মোফাজ্জল হোসেন নামের এক দালালকে দুই লাখ টাকা দেওয়ার কথা ছিল তাঁর।
পতেঙ্গা থানার ওসি কাজী শাহাবুদ্দিন আহমেদ বলেন, আটক হওয়া ১৫ জনই ভুক্তভোগী। তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন