বন্দুকযুদ্ধে হতাহতরা র‍্যাব পরিচয়ে ডাকাতি করত: ডিবি

বিজ্ঞাপন
default-image

রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় গতকাল বুধবার রাতে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সঙ্গে গোলাগুলিতে হতাহত হওয়া ব্যক্তিদের নাম জানা গেছে। এসব ব্যক্তি ডিবি ও র‍্যাব পরিচয় দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ডাকাতি করে আসছিলেন বলে দাবি সংস্থাটির।

গোলাগুলির ওই ঘটনায় এক ব্যক্তি নিহত ও দুজন আহত হন। আহত দুই ব্যক্তিসহ গ্রেপ্তার হন তিনজন। তাঁদের বিরুদ্ধে পৃথক দুটি মামলা হয়েছে।

নিহত ব্যক্তির নাম মো. লাভলু (৫২)। গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত দুজন হলেন সেলিম চৌধুরী ও কামাল হোসেন (৩৭)। ওই ঘটনায় অক্ষত অবস্থায় গ্রেপ্তার হন রাসেল (২৮) নামের এক যুবক। ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগ ওই অভিযানে অংশ নেয়।

ডিবি বলছে, তারা নিহত লাভলু ও আহত সেলিম চৌধুরীর কাছ থেকে দুটি বিদেশি পিস্তল ও পাঁচটি গুলি জব্দ করে। কামাল হোসেনের কাছে একটি ওয়্যারলেস, এক জোড়া হাতকড়া ও র‍্যাবের একটি জ্যাকেট পাওয়া যায়। আর রাসেলের কাছ থেকে জব্দ করা হয় একটি ওয়্যারলেস ও র‍্যাবের একটি জ্যাকেট। পাশাপাশি ‘ডাকাতি কাজে ব্যবহৃত’ একটি মাইক্রোবাস জব্দ করা হয়।

ডিবি সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রাত পৌনে দুইটার দিকে ডিবির উত্তর বিভাগের একটি দল বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার গেট–সংলগ্ন স্থানে অভিযান চালায়। তারা নম্বরবিহীন সিলভার রঙের একটি মাইক্রোবাসকে চ্যালেঞ্জ করে। এ সময় পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি ছোড়েন মাইক্রোবাসে থাকা ব্যক্তিরা। এর ফলে ডিবি আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। এ সময় তিন ডাকাত গুলিবিদ্ধ হয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টাকালে রাস্তায় পড়ে যান। আর কয়েকজন পালিয়ে যেতে সক্ষম হন।

ডিবি সূত্র আরও জানায়, আহত ব্যক্তিদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক লাভলুকে মৃত ঘোষণা করেন। পুলিশি পাহারায় আহত দুজনকে ওই হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। আটক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অস্ত্র, ডাকাতির প্রস্তুতি ও সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগে পৃথক দুটি মামলা করা হয়েছে।

ডিবির (উত্তর) উপকমিশনার মশিউর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, গুলিবিদ্ধ ডাকাতেরা জিজ্ঞাসাবাদে বলেছেন, তাঁরা গত ১৯ অক্টোবর মেরুল বাড্ডায় র‍্যাব পরিচয়ে এক বাসযাত্রীকে মাইক্রোবাসে তোলেন। পরে ওই যাত্রীর কাছ থেকে ৫ লাখ ৩৫ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়ে ডেমরার কাছে ফেলে যান। ওই ঘটনায় বাড্ডা থানায় মামলা হলে ডিবি উত্তর ছায়া তদন্ত করে। তথ্যপ্রযুক্তি ও গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে ডাকাতদের অবস্থান শনাক্ত শেষে গতকালের অভিযান চালানো হয়। তিনি জানান, গতকাল জব্দ হওয়া মাইক্রোবাসটিই ডাকাতেরা গত ১৯ তারিখের ঘটনায় ব্যবহার করেছিল।

ডিবির এই কর্মকর্তা আরও জানান, নিহত ব্যক্তির বিস্তারিত ঠিকানা তাঁরা জানার চেষ্টা করছেন। হতাহত ব্যক্তিরা এর আগে ডিবি ও র‍্যাব পরিচয়ে ডাকাতি-ছিনতাই করতে গিয়ে একাধিকবার গ্রেপ্তার হন। তাঁদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলাও আছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন