default-image

পটুয়াখালীর বাউফলে গত শনিবার দিবাগত রাতে ঘরে ঢুকে ঘুমন্ত অবস্থায় মো. রেদোয়ান সিকদার (১৯) নামে এক কলেজ শিক্ষার্থীকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় তাঁর দুই ছোট ভাই আবদুল্লাহ সিকদার (১৬) ও মো. ফয়সালকে (১২) কুপিয়ে গুরুতর জখম করা হয়েছে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁদের বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

উপজেলার কালিশুরী ইউনিয়নের শিবপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। রেদোয়ান কালিশুরী ডিগ্রি কলেজের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিলেন।

স্থানীয় বাসিন্দা ও নিহতের স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কাপড় রোদে দেওয়াকে কেন্দ্র করে বিরোধের সৃষ্টি হয়। ওই তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে একই এলাকার আলম খানের ছেলে মো. ইমরানের (১৭) নেতৃত্বে ওই ঘটনা ঘটানো হয়।

নিহতের এক স্বজন বলেন, শনিবার দিবাগত রাতে ওরা তিন ভাই এক সঙ্গে ঘুমিয়ে ছিলেন। রাত আড়াইটার দিকে ইমরান ঘরে ঢুকে রেদোয়ানকে লক্ষ্য করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। ওই সময় তাঁর সঙ্গে ঘুমিয়ে থাকা ছোট দুই ভাই আবদুল্লাহ ও ফয়সালক চিৎকার করলে তাদেরও কুপিয়ে আহত করে চলে যায়।

পরে স্থানীয় বাসিন্দারা আহত তিন ভাইকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। তখন দায়িত্বে থাকা চিকিৎসক রেদোয়ানকে মৃত ঘোষণা করেন। আবদুল্লাহ ও ফয়সালকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোস্তাফিজুর রহমান সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের খুব অল্প সময়ের মধ্যে গ্রেপ্তার করা হবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0