বান্দরবানের থানচিতে বিজিবির সদস্যরা বাক্প্রতিবন্ধী থোয়াইহ্লামং মারমাকে (১৩) লাঠিপেটা করেছে—এ অভিযোগে গতকাল শনিবার জেলা শহরে মানববন্ধন করেছে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি)।
শিশুটির বাড়ি থানচির তিন্দু বাজার পাড়ায়। গতকাল তাকে থানচি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়।
থোয়াইহ্লামং মারমার খালু ও কার্বারি ক্রানি অং মারমা বলেন, বিজিবির ক্যাম্প-সংলগ্ন জমিতে কচুর চারা রোপণে বিজিবির সদস্যরা বাধা দিলে থোয়াইহ্লামং প্রতিবাদ করে। তখন বিজিবির সদস্যরা তাকে হাত বেঁধে বেদম মারধর করতে করতে ক্যাম্পে নিয়ে যান। সেখানেও তাকে মারধর করে হাত-পা বেঁধে রাখা হয়।
তবে বিজিবির থানচির বলীপাড়া ব্যাটালিয়নের উপ-অধিনায়ক মেজর আনোয়ার বলেন, বাক্প্রতিবন্ধী ওই শিশুকে নির্যাতনের অভিযোগ সত্য নয়। তিনি বলেন, ক্যাম্পের সীমানার ভেতরের জমিতে কচু চাষ না করতে ওই শিশু ও তার মাকে বলা হয়েছিল। কিন্তু ভাষা না বোঝায় ওই শিশু দা দিয়ে বিজিবির একজন সদস্যের ওপর হামলার চেষ্টা করে। এ জন্য তাকে ক্যাম্পে নিয়ে আসা হয়। তাকে মারধর করা হয়নি। প্রতিবন্ধী জানার পর শিশুটিকে ছেড়ে দেওয়া হয়।
এই ‘নির্যাতনের’ প্রতিবাদে পিসিপি গতকাল বান্দরবান প্রেসক্লাব চত্বরে মানববন্ধন করে। এতে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন সংগঠনের জেলা শাখার সভাপতি উবাসিং মারমা, সাংগঠনিক সম্পাদক উখিংহ্লা মারমা, সহসাধারণ সম্পাদক উহাইনু মারমা ও সদস্য গোপাল চন্দ্র চাকমা।
বক্তারা বাক্প্রতিবন্ধী শিশুকে ‘নির্যাতনের’ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। তাঁরা ‘নির্যাতনকারী’ বিজিবি সদস্যদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0