পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার চাকমাইয়া ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. মনির তালুকদারকে (৪২) কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। গতকাল রোববার বিকেলে ইউনিয়নের ইসলামপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
মনির তালুকদারের ভাই মন্টু তালুকদার বলেন, মনির তালুকদার বাড়ি থেকে বের হয়ে টমটমে করে আমতলী উপজেলার তারিকাটা বাজারের দিকে যাচ্ছিলেন। বিকেল সাড়ে চারটার দিকে ওই বাজারের কাছে ইসলামপুর গ্রামের সুলতান গাজীর বাড়ির সামনে ওত পেতে থাকা ১০-১২ জন সন্ত্রাসী মনিরের পথরোধ করে। এরপর তাদের হাতে থাকা রামদাসহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাঁকে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। একপর্যায়ে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। এরপর সন্ত্রাসীরা কুপিয়ে তাঁর দুই হাত ও দুই পা শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলে। তাঁর ডান চোখও উপড়ে ফেলা হয়। তাঁর মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর সন্ত্রাসীরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। পরে স্থানীয় লোকজন তাঁকে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান।
মনির তালুকদারের স্ত্রী মনিরা সুলতানা অভিযোগ করেন, এ হত্যার পেছনে তাঁর (মনির) এক ফুপাতো ভাইসহ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কিছু নেতা জড়িত রয়েছেন। ওই ফুপাতো ভাই নিজে উপস্থিত থেকে সন্ত্রাসীদের দিয়ে এ হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছেন। এর আগেও তাঁকে কয়েকবার হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে।
উপজেলা বিএনপির সভাপতি এ বি এম মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘এই সরকার ক্ষমতায় আসার পর আওয়ামী লীগের ভয়ে মনির এলাকা ছেড়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে ঢাকায় গিয়ে বসবাস শুরু করেন। নিজের জীবন নিয়ে আমাদের কাছে তিনি বহুবার শঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন। নিষ্ঠুর এই হত্যাকাণ্ড সে শঙ্কারই বহিঃপ্রকাশ।’
ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. হুমায়ুন কবীর কেরামত বলেন, ‘আমাদের কোনো নেতা-কর্মী ওই হত্যাকাণ্ডে জড়িত নন।’
কলাপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আজিজুর রহমান বলেন, হত্যার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে গ্রেপ্তারের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন