কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী খালিশাকোটাল সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে শ্যামল চন্দ্র বাদ্যকার (৩২) নামের এক বাংলাদেশি যুবক নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন দুজন। আজ শুক্রবার ভোরে খালিশাকোটাল সীমান্তের আন্তর্জাতিক পিলার নম্বর ৯৩৪-এর সাব পিলার এস ৭-এর কাছে এ ঘটনা ঘটে।

আহত দুজন হলেন মানিক রায় (৩৪) ও বাদল চন্দ্র বাদ্যকার (৩২)। তাঁদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনার কড়া প্রতিবাদ জানিয়ে বিএসএফকে চিঠি দিয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

নাওডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মুসাব্বের আলী মুসার তথ্যমতে, নিহত শ্যামল গরু ব্যবসায়ীর সহযোগী হিসেবে কাজ করতেন। তিনি ফুলবাড়ী উপজেলার নাওডাঙ্গা ইউনিয়নের বাটিয়াটারি পাড়ার জগৎ চন্দ্র বাদ্যকারের ছেলে। আজ ভোরে ভারতীয় গরু সীমান্ত পারাপারের সময় বিএসএফ তাঁদের লক্ষ্য গুলি ছুড়লে এ ঘটনা ঘটে।

বিজিবি ও এলাকাবাসী জানায়, ভোরে পিলার নম্বর ৯৩৪-এর সাব পিলার এস ৭-এর পাশে ভারতের কিসামত করলা এলাকা দিয়ে বাংলাদেশের ১৫ জনের একটি দল ৩৫-৪০টি গরু বাংলাদেশে ঢোকানোর চেষ্টা করে। এ সময় ভারতের ১২৪ ব্যাটালিয়ন কিসামত করলা ক্যাম্পের টহলরত বিএসএফ সদস্যরা তাঁদের লক্ষ্য করে গুলি ছুড়লে ডান পাঁজরে গুলিবিদ্ধ হয়ে শ্যামল নিহত হন। বিজিবি তাঁর লাশ উদ্ধার করে ফুলবাড়ী থানার পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে।

এ ব্যাপারে ফুলবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বজলুর রশীদ জানান, বিএসএফের গুলিতে নিহত শ্যামলের লাশ বেলা সোয়া ১১টার দিকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে বিজিবি। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ কুড়িগ্রাম হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কুড়িগ্রাম ৪৫ বিজিবি বালারহাট সীমান্ত ফাঁড়ির কমান্ডার হাবিলদার শফিউল আলম বলেন, ‘আমরা এ ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে বিএসএফকে চিঠি দিয়েছি। সীমান্ত এলাকায় বিজিবির টহল জোরদার করা হয়েছে।’

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন