রাজধানীর তেজগাঁও এলাকার একটি বাসা থেকে গতকাল রোববার সকালে ককটেল, পেট্রলবোমা এবং এগুলো তৈরির উপাদানসহ একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। গ্রেপ্তার মো. মহিউদ্দিন স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মী বলে জানিয়েছে পুলিশ।
এদিকে রাজধানীর খিলগাঁওয়ে ককটেল বহন করার সময় তা বিস্ফোরণে মো. কবির হোসেন (৩০) নামে এক যুবকের হাত ও পায়ে জখম হয়।
তেজগাঁও থানার পুলিশ জানায়, গতকাল সকালে তেজগাঁও থানা এলাকার কাজীপাড়া গার্ডেন রোডের একটি বাড়ি থেকে মহিউদ্দিনকে গ্রেপ্তার করা হয়। ওই বাড়ি থেকে দুটি পেট্রলবোমা, চারটি ককটেল, পেট্রল, বিস্ফোরক ও বোমা তৈরির বিভিন্ন উপাদান উদ্ধার করা হয়।
তেজগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম বলেন, মহিউদ্দিন শেরেবাংলা নগর থানা স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মী। জিজ্ঞাসাবাদে তিনি বলেছেন, শেরেবাংলা নগর থানার স্বেচ্ছাসেক দলের সভাপতি মোজাম্মেল হকের নির্দেশে তিনি ওই বোমাগুলো তৈরি করছিলেন। তিনি বোমা তৈরির নির্দেশদাতা হিসেবে তিনজনের নাম বলেছেন। ওই তিনজনসহ মহিউদ্দিনকে আসামি করে তেজগাঁও থানায় একটি মামলা করা হয়েছে। আজ মহিউদ্দিনকে আদালতে পাঠানো হবে।
ককটেল বহনের সময় বিস্ফোরণ: রাজধানীর খিলগাঁও রেলগেট এলাকায় গতকাল সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নিজের বহন করা ককটেলের বিস্ফোরণে মো. কবির আহত হয়েছেন।
খিলগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুস্তাফিজ ভূঁইয়া প্রথম আলোকে বলেন, মো. কবির একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের পণ্য পরিবেশকের কাজ করতেন। আজ সকালে খিলগাঁওয়ের আমানুল্লাহ সুপার মার্কেট থেকে একটি বড় কার্টন নিয়ে তিনি ইসলামপুর যাচ্ছিলেন। এ সময় কার্টনের ভেতরে থাকা ককটেল বিকট শব্দে বিস্ফোরিত হয়। এতে কবিরের বাঁ হাতের তালু ও কবজি এবং বাঁ পায়ের পাতায় জখম হয়। কবিরকে স্থানীয় একটি হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। পরে তাঁকে পুলিশ প্রহরায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। কবির আহত হওয়ায় তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা যায়নি।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন