default-image

বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড (বিডিবিএল) ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ শাখা থেকে রাজেশ বিশ্বাস (২৩) নামের এক নিরাপত্তাকর্মীর হাত-পা ও মুখ বাঁধা রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার রাত পৌনে ১২টার দিকে উপজেলার গোলচত্বরের পাশের চিকিৎসক নজরুল ইসলামের ভবনের দ্বিতীয় তলায় অবস্থিত ব্যাংকের ভেতর থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।
রাজেশ বিশ্বাস (২৩) সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার চান্দপুর গ্রামের ক্ষিরোধ বিশ্বাসের ছেলে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ব্যাংকের দুজন নিরাপত্তাকর্মীকে আটক করা হয়েছে। রোববার বেলা দুইটা পর্যন্ত তাঁরা পুলিশি হেফাজতে ছিলেন।

বিডিবিএলের ব্যবস্থাপক মোবাশ্বের হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ব্যাংকের ভোল্টে টাকা অক্ষত রয়েছে। কোনো টাকা লুট হয়নি। নিহত রাজেশের লাশ পুলিশের মাধ্যমে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় ব্যাংক থেকে থানায় একটি মামলা করা হয়েছে।

পুলিশ ও ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার ব্যাংকের কাজ শেষ করে রাতে ব্যাংকের ভেতরেই নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন রাজেশ। শনিবার সন্ধ্যায় ব্যাংকের কাজে এক কর্মকর্তা ভেতরে যেতে ফটকে নিরাপত্তাকর্মীকে অনেক ডাকাডাকি করেন। কিন্তু ভেতর থেকে কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। সন্ধ্যা সাতটায় ব্যাংকের ব্যবস্থাপক মোবাশ্বের হোসেন নিরাপত্তাকর্মী রাজেশকে পাওয়া যাচ্ছে না বলে আশুগঞ্জ থানা–পুলিশকে জানান। এরপর ব্যবস্থাপককে সঙ্গে নিয়ে পুলিশ ব্যাংকের ফটকের তালা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করেন। ব্যাংকের প্রধান ফটকের উত্তর পাশের মেঝেতে গামছা দিয়ে হাত-পা ও মুখ বাঁধা অবস্থায় রাজেশের দুর্গন্ধযুক্ত রক্তাক্ত লাশ দেখতে পায় পুলিশ।

বিজ্ঞাপন

এ সময় ব্যাংকের ভেতরে কিছু আলমারি, ড্রয়ার ও কাগজপত্র তছনছ অবস্থায় দেখা যায়। ব্যাংকের ভোল্টের হাতল ভাঙা ছিল। তবে ভোল্টে তালা লাগানো ছিল। ব্যাংকের পেছনের দিকের জানালার গ্রিল কাটা দেখতে পায় পুলিশ। রাতেই পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান, জেলা গোয়েন্দা শাখার পুলিশ, জেলার অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) এবং পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) সদস্যসহ অন্যান্য কর্মকর্তা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিরাপত্তাকর্মী রুহুল আমিন (২৮) ও মো. নাহিদকে আটক করে জেলা গোয়েন্দা শাখার পুলিশ। নিহত রাজেশের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাবেদ মাহমুদ প্রথম আলোকে বলেন, তবে নিহত রাজেশের মুখ ও মাথায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। লাশ থেকে দুর্গন্ধ বের হচ্ছে। গত বৃহস্পতিবার রাতে দুষ্কৃতকারীরা এই ঘটনা ঘটিয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তিনি জানান, ব্যাংকের ভেতরে ও বাইরে সিসি ক্যামেরাগুলোর ফুটেজে দেখা গেছে, ২৫ সেপ্টেম্বর রাত দুইটা পর্যন্ত সেগুলো সচল ছিল। ওই সময়ের পরের কোনো ফুটেজ দেখতে পাওয়া যায়নি। সিসি ক্যামেরাগুলো অচল করে দেওয়া হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, ওই ব্যাংকের পাশে ডাচ্‌–বাংলা ব্যাংক রয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুজন নিরাপত্তাকর্মীকে আটক করা হয়েছে। পুলিশের বিশেষ দুটি দল সিআইডি ও পিবিআই বিষয়টি তদন্ত করছে।

মন্তব্য পড়ুন 0