মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলায় সৈয়দ আদিলুজ্জামান (১১) নামের এক ছাত্রের চোখ ও নাকে এক শিক্ষক বেত্রাঘাত করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার মহেষপুর করিমিয়া দাখিল মাদ্রাসায় গতকাল শনিবার এ ঘটনা ঘটে।
চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, অল্পের জন্য ওই ছাত্রের চোখ রক্ষা পেয়েছে।
আদিলুজ্জামান উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামের সৈয়দ আকিমুজ্জামানের ছেলে। সে ওই মাদ্রাসার পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র।
আদিলুজ্জামান বলে, গতকাল বেলা ১১টার দিকে এক সহপাঠীর সঙ্গে তার তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে তর্ক চলছিল। এ ঘটনায় মাদ্রাসার শিক্ষক গিয়াস উদ্দীন তাকে বেত দিয়ে সজোরে কয়েকবার বেত্রাঘাত করেন। বেত্রাঘাতে তার বাঁ চোখের উপরিভাগ ও নাকের উপরিভাগ জখম হয়। আহত হওয়ার পর শিক্ষক গিয়াস তার হাতে ২০ টাকা দিয়ে বলেন, ‘তুই কোনো অভিযোগ করবি না।’ সে শিক্ষকের দেওয়া টাকা নেয়নি।
সৈয়দ আকিমুজ্জামান বলেন, ‘আমার ছেলেকে আহত করে আমাকে না জানিয়ে ওই শিক্ষক দ্রুত আদিলুজ্জামানকে মৌলভীবাজারে বাংলাদেশ অন্ধ কল্যাণ সমিতির চক্ষু হাসপাতালে নিয়ে যান। ঘটনার খবর পেয়ে আমি মাদ্রাসার সুপার জামাল উদ্দীনের কাছে এ ব্যাপারে জানতে যান। মাদ্রাসায় গিয়েও শিক্ষক গিয়াসকে পাওয়া যায়নি। তবে মাদ্রাসার সুপার জামাল উদ্দীন বলেন, এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটেনি। ছাত্রের বাবা মিথ্যাচার করছেন।
মাদ্রাসা কমিটির সভাপতি আবদুস সোবহান বলেন, তদন্ত করে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0