ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ভিপিদের নামফলকের তালিকা থেকে মাহমুদুর রহমান মান্নার নাম মুছে দিয়েছে ছাত্রলীগ। একই সঙ্গে ডাকসুর সংগ্রহশালার কার্যালয়ে টাঙানো সাবেক ভিপিদের ছবির সারি থেকে মাহমুদুর রহমান মান্নার ছবি নামিয়ে তা পুড়িয়ে দেন সংগঠনটির একদল নেতা-কর্মী। 
আজ মঙ্গলবার বেলা ১ টা ১৭ মিনিটে ছাত্রলীগের সহসভাপতি জয়দেব নন্দীর নেতৃত্বে মান্নার নাম মুছে ফেলা ও তাঁর ছবি পুড়িয়ে ফেলা হয়।
জানতে চাইলে জয়দেব নন্দী প্রথম আলোকে বলেন, ‘যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে লাশ ফেলার কথা বলে, তাঁর নাম কখনো ডাকসুতে থাকতে পারে না। এ জন্য একজন সচেতন শিক্ষার্থী হিসেবে সাধারণ শিক্ষার্থীকে নিয়ে তাঁর ছবি পুড়িয়ে ফেলেছি, ভিপিদের নামফলক থেকে তাঁর নাম মুছে দিয়েছি। ’
এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডাকসুর সাবেক ভিপি আ স ম আবদুর রব প্রথম আলোকে বলেন, ‘সমাজে ভিন্নমত থাকতেই পারে। তাই বলে কারও অতীত ইতিহাস মুছে ফেলা যায় না। এটা নিন্দনীয়। ’
মাহমুদুর রহমান মান্না ১৯৭৯ ও ১৯৮০ সাল মেয়াদে ডাকসুর ভিপি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
সম্প্রতি বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন (খোকা) ও নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নার ফোনালাপ প্রকাশ পায়। এর পরই আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি ওঠে। একই সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই ফোনালাপ বেশ আলোচিত। এরই মধ্যে গতকাল সোমবার রাতে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নাকে সাদা পোশাকে থাকা পুলিশ ‘আটক’ করেছে বলে অভিযোগ করেছে তাঁর পরিবার। তবে পুলিশ তা অস্বীকার করেছে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন