চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলার মধ্যম তালবাড়িয়া গ্রামের রিজার্ভপাড়ায় টিলা দখলের জন্য আদিবাসীদের ওপর আওয়ামী লীগের কয়েকজন সমর্থক হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল, চট্টগ্রামের নেতারা গতকাল শনিবার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জাতীয় মুক্তি কাউন্সিলের সদস্যসচিব আমীর আব্বাস বলেন, তালবাড়িয়ার রিজার্ভপাড়ায় ৬০-৭০ বছর ধরে ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর মানুষেরা বসবাস করে আসছে। গত ১৯ জুন ১০-১১ জন সন্ত্রাসী পাহাড়ি টিলায় নিরুপতি ত্রিপুরা নামের এক নারীর রোপণ করা কয়েক শ গাছ কেটে ফেলে। গাছ কাটায় বাধা দিলে নিরুপতিসহ কয়েকজনকে বেধড়ক মারধর করে সন্ত্রাসীরা।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ঘটনার পরদিন নিরুপতি ত্রিপুরা মিরসরাই থানায় মামলা করতে যান। কিন্তু পুলিশ মামলা না নিয়ে বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মিটমাটের পরামর্শ দেয়। পরে বিষয়টি সমাধানের জন্য তিনবার ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে গেলেও তিনি এ বিষয়ে কোনো উদ্যোগ নেননি। হামলাকারীরা আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত থাকায় তিনি নিশ্চুপ আছেন।
সংবাদ সম্মেলনে নিরুপতি ত্রিপুরা বলেন, ‘হামলাকারীরা আমার ছেলেকে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। আমরা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।’
অভিযোগ অস্বীকার করে মিরসরাই সদর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য জাফর আহমেদ চৌধুরী বলেন, ‘ঘটনা সম্পর্কে জানার পর আমি ছেলেগুলোকে ডেকে এনে শাসিয়েছি। তারাও অন্যায় স্বীকার করে ক্ষমা চেয়েছে।’ হামলাকারীদের দলীয় পরিচয় সম্পর্কে তিনি বলেন, তারা আওয়ামী লীগের পরিচয় দেয়। কিন্তু কোনো কমিটিতে নেই।
মিরসরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমতিয়াজ হোসেন ভূঁইয়া প্রথম আলোকে বলেন, ‘অভিযোগ নিয়ে আসার দিন আমি থানায় ছিলাম না। এ বিষয়ে আমাকে কেউ কিছু জানায়নি। তবে অভিযোগ নিয়ে এলে অবশ্যই আমি বিষয়টি দেখব।’
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল চট্টগ্রামের সভাপতি ভুলন ভৌমিক, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম চট্টগ্রামের সভাপতি শান্তিবিকাশ ত্রিপুরা, ত্রিপুরা কল্যাণ সমিতির সভাপতি ফুলকুমার ত্রিপুরা।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0