মেজর (অব.) সিনহাকে আরও দুটি গুলি করল কে

বিজ্ঞাপন
default-image

মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খানের শরীরে চারটি নয়, ছয়টি গুলির আঘাত ছিল। সুরতহাল প্রতিবেদনে বুকে, কাঁধে, হাতে, পিঠে ও কোমরে গুলির জখমের কথা উল্লেখ রয়েছে। যদিও তাঁর মৃত্যুর পর টেকনাফ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নন্দদুলাল রক্ষিত এজাহারে চারটি গুলির কথা উল্লেখ করেন।

প্রশ্ন উঠছে, অন্য দুটি গুলি তাহলে কে ছুড়েছে?

কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে সিনহা মো. রাশেদের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করেন এসআই মো. আমিনুল ইসলাম। কক্সবাজার সদর মডেল থানার এই এসআই নিয়ম অনুযায়ী যে অবস্থায় মৃতদেহটি পেয়েছেন, তার বিবরণ লিপিবদ্ধ করেছেন। ওই প্রতিবেদনে লেখা, ‌বাঁ পাশে কাঁধের নিচে গভীর রক্তাক্ত জখম একটি, বাহুতে একটি, বাঁ পাঁজরে একটি, বাঁ কোমরের ওপর একটি, পিঠের পেছনে একটি, কোমরের ভেতরে একটি—মোট ছয়টি গুলির রক্তাক্ত গভীর চিহ্ন পাওয়া গেছে।

সুরহতহাল প্রতিবেদন তৈরির সময় উপস্থিত ছিলেন মর্গের কর্মী আহামদ কবির মনু।

আজ বুধবার মুঠোফোনে এক প্রশ্নের জবাবে এসআই আমিনুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ৩১ জুলাই দিবাগত রাত দেড়টার দিকে তিনি মৃতদেহটির সুরতহাল করেন। যেখানে যে জখম পেয়েছেন, সেভাবেই লিখেছেন। তিনি ছয়টি গুলির আঘাত পেয়েছেন।

মৃত্যুর পর টেকনাফ থানায় পুলিশ মামলা করে। এজাহার অনুযায়ী গুলি ছুড়েছিলেন টেকনাফের বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক লিয়াকত আলী। এসআই নন্দদুলাল রক্ষিত লেখেন, ‘সেনাবাহিনীর মেজর পরিচয়দানকারী ব্যক্তি কিছুক্ষণ তর্ক করে গাড়ি থেকে নেমে একপর্যায়ে কোমরের ডান পাশ থেকে পিস্তল বের করে গুলি করার জন্য উদ্যত হলে আইসি স্যার (লিয়াকত আলী) নিজের ও সঙ্গীয় অফিসার ফোর্সদের জানমাল রক্ষার্থে সঙ্গে থাকা তাঁর নামে সরকারি ইস্যুকৃত পিস্তল হইতে চার রাউন্ড গুলি করে।’

এ বিষয়ে পুলিশ সদর দপ্তরের একজন কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, পুলিশ সদস্যদের অস্ত্রের বিপরীতে গুলি বরাদ্দ দেওয়া হয়। কোনো সদস্য কী কারণে কতটি গুলি করেছেন, সেটি অস্ত্র ব্যবহারের পরপরই সাধারণ ডায়েরিতে উল্লেখের বাধ্যবাধকতা আছে।

এদিকে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মঙ্গলবার সিনহা মো. রাশেদ খানের ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) শাহীন আবদুর রহমান চৌধুরী জানান, মঙ্গলবার তাঁরা প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তাঁর মৃত্যু হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন