মোটরসাইকেলের সিটের নিচে ৯ কেজি গাঁজা

বিজ্ঞাপন
default-image

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলায় চলমান লকডাউন উপেক্ষা করে বাইরে বের হওয়া নিয়ন্ত্রণ করতে মহাসড়কে যানবাহন থামিয়ে চলছিল ট্রাফিক পুলিশের কাগজপত্র যাচাই কার্যক্রম। এ সময় একজন চালক কাগজপত্র দেখাতে ব্যর্থ হওয়ায় জব্দ করা হয় তাঁর মোটরসাইকেলটি। কিন্তু মোটরসাইকেলের সিট স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি উঁচু হওয়ায় সন্দেহ হয় ট্রাফিক পুলিশের। চালকের উপস্থিতিতে সিট কভার খুলে দেখা যায়, নিচে গাঁজায় ঠাসা।


বিশেষ কায়দায় বানানো এই সিট কভারের ভেতর থেকে বেড়িয়ে আসে প্রায় ৯ কেজি গাঁজা। এ সময় চালককে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদে বেরিয়ে আসে, তিনি মাদক ব্যবসায়ী। পুলিশের চোখ ফাঁকি দিতে মোটরসাইকেলের সিট কভারে ফোমের বদলে গাঁজা ভরিয়ে পাচারের চেষ্টা করছিলেন। শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার মোকামতলা ট্রাফিক ফাঁড়ির সামনে ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে এই ঘটনা ঘটে।

আটক মাদক পাচারকারীর নাম আবু সাঈদ (২৮)। বাড়ি গাইবান্ধা সদর উপজেলার নয়নপুর গ্রামে। তাঁকে মোকামতলা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে হস্তান্তর করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আবু সাঈদ স্বীকার করেছেন, ফোমের বদলে গাঁজা ভরানো সিটে বসে মোটরসাইকেল চালিয়ে তিনি কুড়িগ্রাম থেকে বগুড়া শহরের এক ব্যবসায়ীর কাছে যাচ্ছিলেন। দীর্ঘদিন ধরে এভাবেই তিনি গাঁজা পাচার করছিলেন।

বগুড়ার মোকামতলা ট্রাফিক ফাঁড়ির ইনচার্জ (পরিদর্শক) রেজাউল করিম খান প্রথম আলোকে বলেন, সিট কভারের নিচে সূক্ষ্মভাবে গাঁজা ভরানো ছিল। এটা সহজে কারও সন্দেহ হওয়ার কথা নয়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন