বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রাজধানীর গুলশানের একটি ফ্ল্যাট থেকে গত ২৬ এপ্রিল রাতে কলেজছাত্রী মোসারাত জাহানের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সায়েম সোবহান আনভীরের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় আত্মহত্যায় প্ররোচনার মামলা করেন মোসারাতের বড় বোন নুসরাত জাহান। এ মামলায় জুলাইয়ে আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দেয় পুলিশ।

ঢাকার সিএমএম আদালত ১৮ আগস্ট পুলিশের দেওয়া চূড়ান্ত প্রতিবেদন গ্রহণ করেন। আদালতের এ আদেশে মামলা থেকে অব্যাহতি পান আসামি সায়েম সোবহান আনভীর। এরপর মোসারাতকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে নতুন মামলা করা হয়।

মোসারাতের বোন নুসরাত জাহান গত ৬ সেপ্টেম্বর বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমদ আকবর সোবহান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সায়েম সোবহান আনভীরসহ আটজনের বিরুদ্ধে ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৮-এ নালিশি মামলা করেন। পরে আদালত মামলাটি গুলশান থানাকে এজাহার হিসেবে রেকর্ড করার আদেশ দেন। একই সঙ্গে পিবিআইকে তদন্ত করার নির্দেশ দেন।

মামলায় বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমদ আকবর সোবহান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সায়েম সোবহান আনভীর, আহমেদ আকবর সোবহানের স্ত্রী আফরোজা সোবহান, আনভীরের স্ত্রী সাবরিনা, সাইফা রহমান মিম, মডেল ফারিয়া মাহবুব পিয়াসা, শারমিন ও ইব্রাহিম আহমেদ রিপনকে আসামি করা হয়েছে।

পৃথক তিনটি মাদক মামলায় ১ আগস্ট থেকে গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে আছেন মডেল ফারিয়া মাহাবুব পিয়াসা। আদালতসংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, মোসারাত জাহানকে ধর্ষণের পর হত্যা মামলায় পিয়াসাকে গ্রেপ্তার দেখানোর জন্য ১৩ সেপ্টেম্বর আবেদন করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। ৩ অক্টোবর অনুষ্ঠিত শুনানিতে পিয়াসাকে এ মামলায় দুই দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দেন আদালত। পিয়াসা এখন কারাগারে আছেন।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন