চট্টগ্রামের রাউজানে দুর্বৃত্তের গুলিতে যুবলীগের এক কর্মী নিহত হয়েছেন। তাঁর নাম শহীদুল আলম (৩৫)। দুই মাস আগে আবুধাবি থেকে তিনি দেশে এসেছিলেন। গতকাল বুধবার বেলা তিনটার দিকে উপজেলার রাউজান-রাঙামাটি সড়কের চারাবটতল এলাকায় তাঁকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ সময় বাহার নামে শহীদুলের এক বন্ধু গুলিবিদ্ধ হন। তবে পুলিশ বলছে, তাঁকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।
পুলিশ বলছে, শহীদুলের বিরুদ্ধে হত্যা, মাদকসহ বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে।
নিহত শহীদুলের পরিবারের অভিযোগ, রাউজানের সন্ত্রাসী আজিজ বাহিনীর প্রধান আজিজের নেতৃত্বে তাঁকে খুন করা হয়েছে। তিনি ৭ নম্বর রাউজান ইউনিয়ন হরিশখাইনপাড়ার আলী আহাম্মদের ছেলে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুটি মাইক্রোবাসে করে ১০-১২ জন মুখোশ পরা যুবক এসে চারাবটতল এলাকায় একটি দোকানে বন্ধুর জন্য অপেক্ষা করা শহীদুলকে গুলি করে পালিয়ে যান। ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতাল মর্গে আনা হয়েছে।
জানতে চাইলে রাউজান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, চারাবটতল এলাকায় যুবলীগের কর্মী হিসেবে পরিচিত শহীদুলকে কে বা কারা গুলি করে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়। গুলিতে তাঁর মাথার মগজ বেরিয়ে গেছে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে। কারা, কী উদ্দেশ্যে তাঁকে গুলি করে হত্যা করেছে, প্রাথমিকভাবে তা জানাতে পারেনি পুলিশ। বন্দুক কিংবা রিভলবার দিয়ে শহীদুলকে গুলি করা হয়েছে বলে ধারণা করছে পুলিশ। তাঁর বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে।
শহীদুলের বড় ভাই নুরুল কবির গতকাল সন্ধ্যায় প্রথম আলোকে জানান, দুই মাস আগে আবুধাবি থেকে দেশে ফিরে আসেন শহীদুল আলম। দেশে তাঁর কাঠের ব্যবসা রয়েছে। এ জন্য কিছুদিন পর পর দেশে আসেন। যুবলীগের মিছিল-মিটিংয়ে অংশগ্রহণ করতেন। তাঁর ভাইয়ের বিরুদ্ধে মাদকের মামলা থাকার কথা স্বীকার করেন তিনি। নিহত শহীদুলের আবির (৮) ও আদনান (৩) নামে দুই ছেলে রয়েছে।
ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী মো. মামুন জানান, রাঙামাটি সড়কের রাবারবাগান এলাকার দিক থেকে দুটি মাইক্রোবাস থেকে ১০-১২ জন মুখোশ পরা যুবক নেমে শহীদুলকে গুলি করেন। সবার হাতে অস্ত্র ছিল। ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়। এ সময় বাহার নামে এক ব্যক্তিও গুলিবিদ্ধ হন। মিনিট দুয়েক পর তাঁরা গাড়ি নিয়ে রাউজান সদরের দিকে চলে যান।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন