রাজধানীতে আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর থেকে পেট্রলবোমা ও ককটেল হামলায় দুজন দগ্ধ ও সাতজন আহত হয়েছেন। তাঁদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে রামপুরা বনশ্রীর আল রাজি হাসপাতালের সামনে আলিফ পরিবহনের একটি বাসে পেট্রলবোমা নিক্ষেপ করে দুর্বৃত্তরা। এতে বাসের সহকারী মো. বাপ্পী ও যাত্রী মো. রাজীব দগ্ধ হন। পরে স্থানীয় লোকজন বাসের আগুন নেভান। আগুনে বাপ্পীর শরীরের ৭০ শতাংশ পুড়ে গেছে বলে বার্ন ইউনিটের চিকিৎসকেরা জানান।
এদিকে প্রায় একই সময়ে ধানমন্ডির ১৯–এর এ এলাকায় ককটেল বিস্ফোরণে মোশাররফ হোসেন মোহন, তাঁর বোন পপি আক্তার ও খালা শাহীন আক্তার আহত হয়েছেন। তাঁদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
এর আগে সন্ধ্যার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া হল, টিএসসি ও দোয়েল চত্বর এলাকায় ককটেল বিস্ফোরণে চারজন আহত হয়েছেন।
আহত ব্যক্তিরা হলেন শাফি আলম, মো. সোহেল, নুরুল আমিন ও মিনজু মিয়া। তাঁদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, সন্ধ্যা ছয়টার দিকে রোকেয়া হলের প্রধান ফটকের সামনে একটি ককটেল বিস্ফোরিত হয়। এতে শাফি আলম আহত হন। তাঁর ঘাড়ে ককটেলের স্প্লিন্টার লাগে।
এদিকে রাত পৌনে আটটার দিকে টিএসসি এলাকায় ককটেল বিস্ফোরণে চা-দোকানি মো. সোহেল আহত হন। তাঁর ডান পায়ে ককটেলের স্প্লিন্টার লাগে। প্রায় একই সময়ে দোয়েল চত্বর এলাকায় ককটেল বিস্ফোরণে রিকশাচালক মিনজু মিয়া ও আরোহী নুরুল আমিন আহত হন। দুজনেরই বাঁ-পায়ে স্প্লিন্টার লাগে।
ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (পরিদর্শক) মোজাম্মেল হক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন