রাজশাহীতে হরতাল চলাকালে কয়েকটি অটোরিকশা ও পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর করেছে হরতালের সমর্থকেরা। ইসলামী ছাত্রশিবির হরতালের সমর্থনে মিছিল বের করে নাশকতা চালানোর চেষ্টা করলে পুলিশের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ হয়। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে মোট ৩৬ জন আটক হয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল সাড়ে নয়টার দিকে শালবাগান এলাকায় পেট্রল পাম্পের সামনে বোয়ালিয়া থানার সহকারী কমিশনারের (এসি) গাড়ি রাখা ছিল। পাশের গলি থেকে কয়েকজন হরতাল সমর্থক গিয়ে ইটপাটকেল ছুড়ে গাড়ির কাচ ভেঙে পালিয়ে যায়। এ ছাড়াও নগরের রেলগেট, দড়িখরবনা ও হোসেনিগঞ্জ মোড়ে কয়েকটি অটোরিকশা ভাঙচুর করে হরতালের সমর্থকেরা। রেলগেট মোড়ে তারা একটি হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটায়।

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ইসলামী ছাত্রশিবিরের কর্মীরা হরতালের সমর্থনে নগরের ফায়ার সার্ভিস মোড়ের রাস্তায় পেট্রল ঢেলে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করেন। মিছিল নিয়ে বরেন্দ্র জাদুঘর মোড়ের দিকে যাওয়ার সময় পেছন দিক থেকে পুলিশ এগিয়ে এলে শিবিরের কর্মীরা পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছোড়েন। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ ও পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। শিবিরের কর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে একটি হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটান। পুলিশ কয়েকটি রাবার বুলেট ছুড়ে তাঁদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।
এদিকে, সকাল সাতটার দিকে হরতালের সমর্থনে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও মহানগরের সভাপতি মিজানুর রহমান মিনুর নেতৃত্বে কাদিরগঞ্জ মোড় থেকে বিএনপির নেতা-কর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। মিছিলটি নগর ভবনের সামনে গিয়ে শেষ হয়। মিছিলে সিটি মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল ও মহানগরের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক উপস্থিত ছিলেন। পরে তাঁরা নগরের মালোপাড়ায় দলীয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেন। এ ছাড়াও হরতালের সমর্থনে কোর্ট স্টেশন এলাকায় মিছিল করেন জামায়াতে ইসলামীর কর্মীরা। তবে সেখানে পুলিশ পৌঁছার আগেই তাঁরা পালিয়ে যান।

অপরদিকে, হরতালবিরোধী মিছিল করেছে আওয়ামী লীগ। নগরের রেলগেট মোড় থেকে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা ও মহানগরের সভাপতি এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটনের নেতৃত্বে দলের নেতা-কর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। মিছিলটি নিউমার্কেট, গণকপাড়া ও সাহেববাজার জিরো পয়েন্ট হয়ে দলীয় কুমারপাড়া এলাকায় কার্যালয়ে গিয়ে শেষ হয়।

রাজশাহী র‌্যাবের সহকারী পরিচালক এএসপি মীর্জা গোলাম সারোয়ার পিপিএম বলেন, ভোরে নগরের মিজানের মোড় থেকে সাতটি পেট্রল বোমাসহ দুই হরতাল সমর্থককে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। এর আগে মেহেরচণ্ডি এলাকা থেকে একটি ওয়ান শুটারগান ও নয়টি ধারালো অস্ত্র পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার (এসি) ইফতাখায়ের আলম বলেন, হরতালকে কেন্দ্র করে নগরের চার থানা এলাকা থেকে ৩৬ জনকে আটক করা হয়েছে। এর মধ্যে পুলিশ ৩৪ জনকে এবং র‌্যাব দুজনকে আটক করে। গতকাল রোববার গভীর রাত থেকে আজ সকাল পর্যন্ত নগরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাঁদের আটক করা হয়েছে। আটক ব্যক্তিরা বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠন এবং জামায়াত-শিবিরের নেতা-কর্মী।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন