রিফাত হত্যা মামলার রায় ৩০ সেপ্টেম্বর

আদালতের কার্যক্রম শেষে ফিরে যাচ্ছেন আয়শা সিদ্দিকা। বুধবার দুপুর সাড়ে  ১২টায় বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালত প্রাঙ্গণ থেকে তোলা
আদালতের কার্যক্রম শেষে ফিরে যাচ্ছেন আয়শা সিদ্দিকা। বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালত প্রাঙ্গণ থেকে তোলামোহাম্মদ রফিক
বিজ্ঞাপন

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির রায় আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর ঘোষণার তারিখ নির্ধারণ করেছেন আদালত। বুধবার দুপুরে বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান এই তারিখ ঘোষণা করেন। রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির পক্ষে-বিপক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হওয়ার পর এই দিন ধার্য করা হয়।

default-image

আদালত সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে ৭৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে এক আসামির পক্ষে সাফাই সাক্ষ্যগ্রহণ করেন আদালত। এরপর সব আসামির পক্ষে-বিপক্ষে আদালতে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন সংশ্লিষ্ট আইনজীবীরা।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রিফাতের স্ত্রী আয়শার জামিন

নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকার আইনজীবী মাহবুবুল বারী আসলাম বলেন, ‘আদালত উভয় পক্ষের যুক্তি খণ্ডন শেষে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির রায়ের দিন ধার্য করেছেন। আদালত আমার জিম্মায় আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আয়শা সিদ্দিকাকে জামিন দিয়েছেন।’

বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি ভুবন চন্দ্র হালদার বলেন, মামলার ৭ নম্বর আসামি নিহত রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকার জামিন বাতিলের জন্য আবেদন করা হয়েছিল। তবে আদালত আইনজীবীর জিম্মায় আয়শাকে জামিন দিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গত বছরের ২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ওই বছরের ১ সেপ্টেম্বর ২৪ জনকে অভিযুক্ত করে প্রাপ্ত ও অপ্রাপ্তবয়স্ক দুভাগে বিভক্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দেয় পুলিশ। এর মধ্যে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ জন এবং অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ জনকে আসামি করা হয়েছে। মামলার অভিযোগপত্রভুক্ত প্রাপ্তবয়স্ক আসামি মো. মুসা এখনো পলাতক।

গত ১ জানুয়ারি রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালত। এরপর ৮ জানুয়ারি থেকে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু করেন আদালত। মোট ৭৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে এই মামলায়।

রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক আসামিরা হলেন রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজি, আল কাইউম ওরফে রাব্বি আকন, মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত, রেজওয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয়, মো. হাসান, মো. মুসা, আয়শা সিদ্দিকা, রাফিউল ইসলাম রাব্বি, মো. সাগর ও কামরুল ইসলাম সাইমুন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন