ঢাকা কাস্টম হাউসের কর্মকর্তারা বলেন, তাঁদের কাছে খবর ছিল, এমিরেটস এয়ারলাইনসের এক যাত্রীর মাধ্যমে বিমানবন্দর দিয়ে বিপুল পরিমাণ সোনা পাচার হতে পারে। এমন খবরের ভিত্তিতে ঢাকা কাস্টম হাউসের প্রিভেনটিভ ইউনিট বিমানবন্দরের প্রতিটি পয়েন্টে নজরদারি জোরদার করে।

ঢাকা কাস্টম হাউসের কর্মকর্তারা বলেন, আজ সকাল ৮টা ৪০ মিনিটের দিকে এমিরেটস এয়ারলাইনসের ফ্লাইটটি (ইকে-৫৮২) বিমানবন্দরে অবতরণ করে। ফ্লাইটটির সন্দেহভাজন যাত্রী হিসেবে শাহনাজ চৌধুরীকে শনাক্ত করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি সোনার বার বহনের কথা অস্বীকার করেন। পরে তাঁর কাছ থেকে ৫৯টি সোনার বার উদ্ধার করা হয়।

ঢাকা কাস্টম হাউসের উপকমিশনার সানোয়ারুল কবীর বলেন, শাহনাজ চৌধুরীর কাছ থেকে উদ্ধার সোনার বারের ওজন ৬ কেজি ৮০০ গ্রাম। জব্দ সোনার বারের বাজারমূল্য প্রায় পাঁচ কোটি টাকা।

শাহনাজ চৌধুরীর বিরুদ্ধে ফৌজদারি ও কাস্টম আইনে দুটি মামলা করা হবে বলে জানান সানোয়ারুল কবীর।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন