চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের ভাটিয়ারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক বশির উদ্দিন আহাম্মদের পরিবারকে নয় দিন ধরে ‘অবরুদ্ধ’ করে রাখার অভিযোগ উঠেছে। জমির সীমানা বিরোধ নিয়ে প্রতিপক্ষের লোকজন বেড়া দিয়ে তাঁর বসতঘরের চলাচলের পথ বন্ধ করে দেওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।
তবে পুলিশ ও ভাটিয়ারী ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান নুরুল আনোয়ার ওই বেড়া ভেঙে কোনোমতে চলাচলের জন্য পথ করে দিলেও হামলার ভয়ে বের হতে পারছেন না বশিরের পরিবারের সদস্যরা। এ ঘটনায় বশির উদ্দিন বাদী হয়ে থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছেন।
গত শনিবার সরেজমিনে দেখা যায়, বশির উদ্দিনের একতলা ঘরের উঠানের পশ্চিম পাশে বাঁশ দিয়ে ও উত্তর পাশে বেড়া দিয়ে ঘেরা দেওয়া হয়। তবে একজন চলাচল করতে পারবে এমন জায়গা করে দেওয়া হয়েছে।
বশির উদ্দিন প্রথম আলোকে জানান, দীর্ঘদিন ধরে বাড়ি ও দোকানের সীমানা নিয়ে তাঁদের সঙ্গে একই বাড়ির মো. নছিমের পরিবারের বিরোধ চলছিল। ২০ ডিসেম্বর নছিম অন্তত ১৫ জন লোক নিয়ে বাঁশের বেড়া দিয়ে তাঁর ঘরের সামনে চলাচলের পথ বন্ধ করে দেন। শেষ বয়সে অবসরে গিয়ে শান্তিতে দিন কাটানোর বদলে প্রতিপক্ষের মামলায় গ্রেপ্তার এড়াতে ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন তিনি। এ ছাড়া হামলার ভয়ে ঘর থেকে বের হতে পারছেন না তিনি ও তাঁর পরিবারের সদস্যরা।
অভিযোগ অস্বীকার করে মো. নছিম জানান, তাঁরা বশির উদ্দিনের পরিবারের চলাচলের পথ বন্ধ করেননি। তাঁরা তাঁদের ভবনের সংস্কারের কাজের জন্য বেড়া দিয়েছেন। তবে জায়গাজমি নিয়ে বিরোধের বিষয়টি তিনি স্বীকার করেন।
এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আনোয়ার প্রথম আলোকে বলেন, পথ বন্ধ করার খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে বেড়া কিছুটা ভেঙে চলাচলের জায়গা করে দেন। আগামী চার-পাঁচ দিনের মধ্যে উভয় পক্ষকে ডেকে তিনি এ বিষয় নিয়ে বৈঠক করবেন।
সীতাকুণ্ড থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. সাইফুল্লাহ জানান, চলাচলের পথ বন্ধ না করার জন্য প্রতিপক্ষকে বলে আসা হয়েছে। উভয় পক্ষকে ডেকে বিষয়টি মীমাংসা করার চেষ্টা করা হবে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন