চট্টগ্রাম বন্দরের অনিয়ম-দুর্নীতির তদন্তে গঠিত নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়-সর্ম্পকিত সংসদীয় কমিটির এক নম্বর সাব-কমিটির আজ সোমবার চট্টগ্রামে আসার কথা রয়েছে। সাব-কমিটির আহ্বায়ক এম এ লতিফের নেতৃত্বে তিন সদস্যের দল কাল মঙ্গলবার বন্দর পরিদর্শন করবেন।
তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক সাংসদ এম এ লতিফ প্রথম আলোকে বলেন, বন্দরের বিভিন্ন কেনাকাটায় দুর্নীতি ও জনবল নিয়োগে অনিয়মের তদন্ত করা হবে। এ-সংক্রান্ত ফাইল তলব করা হবে। এ ছাড়া বন্দর কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করবে কমিটি। সাব-কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন সাংসদ মো. নুরুল ইসলাম ও মো. আনোয়ারুল আজীম।
কমিটি সূত্র জানায়, বন্দরের পাঁচটি প্রকল্পে দুর্নীতি ও অনিয়মের তদন্ত করা হবে। এসব প্রকল্পে যেসব জাহাজ ও যন্ত্র কেনা হয়েছে, সেগুলো সরেজমিন পরিদর্শন করবেন সাব-কমিটির সদস্যরা। পাঁচটি প্রকল্প হলো: তিনটি পুরোনো জাহাজ ক্রয়, খননযন্ত্র ও অ্যাম্বুলেন্স শিপ ক্রয়, কনটেইনার ব্যবস্থাপনায় স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতি ও নৌ চলাচল প্রযুক্তি পদ্ধতি।
বন্দর সূত্রে জানা গেছে, বন্দর কর্তৃপক্ষ তিনটি পুরোনো জাহাজ দরপত্রের মাধ্যমে কিনেছে প্রায় ৪৯ কোটি টাকায়। এই জাহাজ কেনায় বাস্তবে খরচ হয় প্রায় ৩৬ কোটি টাকা। এর পাশাপাশি ২০ কোটি টাকায় একটি খননযন্ত্র এবং ২৩ কোটি ৯০ লাখ টাকায় একটি আম্বুলেন্স শিপ কেনা নিয়েও অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন