বিজ্ঞাপন

ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের প্রধান সোহেল মাহমুদ প্রথম আলোকে বলেন, আসামিপক্ষের লোকজন যোগাযোগ করে থাকতে পারেন। এমন সবাই করে। তাঁরা ময়নাতদন্তে যা পাবেন, তা-ই দেবেন। কেন আট মাসেও উম্মে কুলসুম হত্যাকাণ্ডের ময়নাতদন্ত দেওয়া হলো না, জানতে চাইলে সোহেল মাহমুদ বলেন, বাদীপক্ষ অনুরোধ করেছেন একটি বোর্ড যেন ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনটা দেয়। করোনার কারণে বোর্ড বসতে পারেনি। প্রতিবেদনও দেওয়া হয়নি।

যদিও কুলসুমের মৃত্যু হয় করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরুর অন্তত দুই মাস আগে।
সারওয়ার মো. কাওছার বলেন, মেরুল বাড্ডার ডিআইটি প্রজেক্টের একটি বাসায় স্বামী, শাশুড়ি ও শ্বশুরবাড়ির লোকজনের সঙ্গে থাকতেন কুলসুম। গত ২৫ জানুয়ারি কুলসুমের দেবর ‘সুমন’ ফোন করে তাঁদের জানায়, কুলসুম খুন হয়েছেন। খবর পেয়ে তাঁরা কুলসুমের বাসায় গিয়ে দরজা বাইরে থেকে তালা মারা অবস্থায় পান। পরে বাড়িওয়ালার অতিরিক্ত চাবি দিয়ে থানা-পুলিশের উপস্থিতিতে ফ্ল্যাটের দরজা খুলে কুলসুমের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেন। মৃতদেহের মাথার পেছনে, নাক-মুখসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে জখমের চিহ্ন দেখতে পান তাঁরা।

সারওয়ার মো. কাওছার তাঁর শ্যালিকা কুলসুমের আঘাতে ভরা মৃতদেহের কিছু ছবিও নিজের কাছে রেখেছেন।

সারওয়ার মো. কাওছার আরও জানান, বছর পাঁচেক আগে পারিবারিক সম্মতিতে উম্মে কুলসুমের সঙ্গে এমদাদ হোসেনের বিয়ে হয়েছিল। বিয়ের পর থেকেই নির্যাতনের শিকার হয়ে আসছিলেন তিনি। তিন বছরের ছেলে ঈশানের কথা চিন্তা করে মুখ বুঁজে সহ্য করে আসছিলেন। ২০১৭ সালে একবার প্রচণ্ড মারধরের শিকার হলে সাধারণ ডায়েরি করেছিলেন স্বজনেরা। পরে নিজেদের মধ্যে মীমাংসা করে কুলসুম সংসারে ফিরে যান। মৃত্যুর দিন তিনেক আগে আবারও প্রচণ্ড মারধরের শিকার হন কুলসুম।

পরিবারের লোকজন ১০৯-এ ফোন করে সে সময় সাহায্য চেয়েছিলেন। পুলিশ এমদাদ হোসেনকে গ্রেপ্তারও করেছিল। পরে থানায় এসে আর কখনো নির্যাতন করবেন না বলে মুচলেকা দেন। হত্যা মামলার আসামিরা সে সময় উপস্থিত ছিলেন থানায়। কুলসুম আবারও শ্বশুরবাড়ির লোকজনের প্রতিশ্রুতি পেয়ে বাসায় ফিরে যান। এর পরের দুদিন পরিবারের লোকজন যখনই ফোন করেছেন, তখনই কুলসুমের শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাঁদের জানিয়েছেন, তিনি (কুলসুম) তাঁর ছেলেকে নিয়ে ব্যস্ত। কখনো বলেছেন কুলসুম ছেলেকে খাওয়াচ্ছেন, কখনো বলেছেন ঘুম পাড়াচ্ছেন। কুলসুমের পরিবারের কেউ জানতেও পারেননি তিনি মারা গেছেন।

মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডির পরিদর্শক মো. ইব্রাহীম বলেন, কুলসুম খুন হয়েছেন কি না, সেটি এখন তদন্ত হচ্ছে। আসামিপক্ষ ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের লোকজনের সঙ্গে কথা বলেছেন কি না, এটা তাঁর মামলার বিষয় নয়। এটা অপ্রাসঙ্গিক।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন