বিজ্ঞাপন

ভাটারা থানার পুলিশ জানায়, জোবেদা দুই সন্তান নিয়ে স্বামীর সঙ্গে বাড্ডার থানার সোলমাইদে একটি ভাড়া বাসায় থাকতেন। জোবেদা পেশায় গৃহকর্মী ছিলেন। গত বৃহস্পতিবার রাতে জোবেদা তার দেড় ও তিন বছরের দুই সন্তান নিয়ে ঘুমিয়েছিলেন। একপর্যায়ে কাশেম কুড়াল দিয়ে তার স্ত্রীকে কুপিয়ে পালিয়ে যান। পরে সকালে প্রতিবেশীরা ভাটারা থানায় জানান। পরে পুলিশ জোবেদার রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠায়।

পুলিশের গুলশান বিভাগের উপকমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্ত্তী গতকাল প্রথম আলোকে বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে কাশেম পুলিশকে বলেন জোবেদার সঙ্গে একজনের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল বলে তার সন্দেহ। এ নিয়ে প্রায়ই তাদের ঝগড়া হতো। বৃহস্পতিবার রাতেও দুজনের মধ্যে ঝগড়াঝাঁটি হয়। এ সময় তিনি তার স্ত্রীকে হত্যার পরিকল্পনা করেন। জোবেদা ঘুমিয়ে পড়লে রাত ২ টার দিকে কুড়াল দিয়ে উপর্যুপরি কুপিয়ে পালিয়ে সোলমাইদের একটি বাসায় লুকিয়ে ছিলেন। সন্দেহ করাটাই তার ভুল ছিল মনে করছেন কাশেম।

পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, মা খুন হওয়ার পর দুই শিশু সন্তান এখন চাচার কাছে আছে।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন