সাংসদ আমানুরের সহযোগী মোর্শেদ গ্রেপ্তার

বিজ্ঞাপন

টাঙ্গাইল-৩ আসনের পলাতক সাংসদ আমানুর রহমান খানের (রানা) ঘনিষ্ঠ সহযোগী মোর্শেদকে আজ মঙ্গলবার গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। তিনি পুলিশের তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী।

টাঙ্গাইল জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মাহফীজুর রহমান বলেন, গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল আজ দুপুর একটার দিকে শহরের বিশ্বাস বেতকা এলাকা থেকে মোর্শেদকে গ্রেপ্তার করে। মোর্শেদ আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে বড় ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ঘটাতে পারেন—পুলিশের কাছে এমন তথ্য ছিল। তাঁকে সুনির্দিষ্ট মামলায় আগামীকাল বুধবার আদালতে সোপর্দ করা হবে।

গোয়েন্দা পুলিশ সূত্র জানায়, মোর্শেদের বিরুদ্ধে ২০০৪ সালে টাঙ্গাইল শহরের বিশ্বাস বেতকা এলাকায় রেজা নামের এক যুবককে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগে মামলা করা হয়। ওই ঘটনার পর থেকে তিনি আত্মগোপনে ছিলেন। পরবর্তীতে তিনি সৌদি আরব চলে যান। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করার পর আমানুর ও মোর্শেদ দেশে ফেরেন। রাজনৈতিক বিবেচনায় মোর্শেদের বিরুদ্ধে করা রেজা হত্যা মামলাটি প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। ২০১৩ সালে জুন মাসে শহরের সুপারি বাগান এলাকায় তুহিন নামের এক যুবককে প্রকাশ্যে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে।

২০১৩ সালের ১৮ জানুয়ারি টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা ফারুক আহমেদকে হত্যা করা হয়। আলোচিত ফারুক আহমেদ হত্যা মামলায় টাঙ্গাইলের প্রভাবশালী খান পরিবারের সাংসদ আমানুর রহমান খানসহ চার ভাই আসামি। অন্য তিনজন হলেন শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর পৌরসভার মেয়র সহিদুর রহমান খান (মুক্তি), টাঙ্গাইল জেলা চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি ও ব্যবসায়ী নেতা জাহিদুর রহমান খান (কাকন) এবং কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য, সদ্য সাবেক সহসভাপতি সানিয়াত খান (বাপ্পা)।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন