দিনাজপুরের পার্বতীপুরের বেলাইচন্ডি বাসস্ট্যান্ডে গত সোমবার রাতে সাদাপোশাকে আসামি ধরতে গিয়ে জনতার রোষানলে পড়েন ছয় র‌্যাব সদস্য। ডাকাত ভেবে স্থানীয়রা তাঁদের অন্তত দুই ঘণ্টা অবরোধ করে রাখেন। পরে দিনাজপুর র‌্যাব-১৩-এর অধিনায়ক ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ঘটনাস্থলে গিয়ে স্থানীয়দের বুঝিয়ে তাঁদের উদ্ধার করেন।
প্রত্যক্ষদর্শী ও পার্বতীপুর থানা সূত্র জানায়, র‌্যাব-১৩-এর ছয় সদস্য সাদাপোশাকে ওই দিন সন্ধ্যার পর বেলাইচন্ডি বাসস্ট্যান্ড থেকে অভিযুক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী মনোয়ারুল ইসলামকে (৩৫) আটক করেন। এরপর মনোয়ারুলের সহযোগী আবদুল ওয়াহাবকে (২৮) ধরতে বাসস্ট্যান্ডের এক কম্পিউটার দোকানে গেলে সেখানে থাকা ওয়াহাব সাদাপোশাকে থাকা র‌্যাব সদস্যদের পরিচয় নিয়ে চ্যালেঞ্জ করেন। এরই একপর্যায়ে ওয়াহাব ‘ডাকাত ডাকাত’ বলে চিৎকার করলে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে র‌্যাব সদস্যদের ঘিরে ফেলেন। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে র‌্যাব সদস্যরা ফাঁকা গুলি ছুড়তে থাকেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, গুলির শব্দ ও শোরগোল শুনে আশপাশের বাসিন্দারা ডাকাত পড়েছে ভেবে লাঠিসোঁটা ও ইট-পাটকেল নিয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। তাঁরা র‌্যাব সদস্যদের রাত আটটা থেকে ১০টা পর্যন্ত অবরুদ্ধ রাখেন। পরে স্থানীয় জনতা সৈয়দপুর-পার্বতীপুর মহাসড়কও অন্তত দুই ঘণ্টা অবরোধ করে রাখেন।
পুলিশ জানায়, খবর পেয়ে রাত ১০টার দিকে র‌্যাব-১৩-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল কিসমত আলী ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাখাওয়াত হোসেন ঘটনাস্থলে পৌঁছে জনতাকে বুঝিয়ে অবরুদ্ধ র‌্যাব সদস্যদের উদ্ধার করেন।
বেলাইচন্ডি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ ও পার্বতীপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল আলম জানান, ৬ ও ১৭ ফেব্রুয়ারি বেলাইচন্ডি বাজারের কয়েকটি দোকানে ডাকাতি হয়। এতে বাজারের ব্যবসায়ী ও আশপাশের গ্রামবাসী ডাকাত আতঙ্কে ভুগছিলেন। র‌্যাবের সদস্যরা সাদাপোশাকে আসায় বাজারের লোকজন তাঁদের ডাকাত ভেবেছিলেন। এ কারণেই ওই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটে।
ওসি মাহমুদুল আলম জানান, এ ঘটনায় দিনাজপুর র‌্যাবের ডিএডি কুদ্দুস রহমান পার্বতীপুর মডেল থানায় গতকাল বিকেলে পৃথক দুটি মামলা করেছেন। এর মধ্যে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দায়ের মামলাটিতে মনোয়ারুল ও ওয়াহাবকে আসামি করা হয়েছে। অপরটিতে বেলাইচন্ডি ইউপির চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদসহ অজ্ঞাতসংখ্যক মানুষকে আসামি করা হয়েছে। সরকারি কাজে বাধা, র‌্যাব সদস্যদের ওপর হামলা ও অবরুদ্ধ করে রাখার অভিযোগে মামলাটি করা হয়েছে।
র‌্যাব-১৩-এর সহকারী পুলিশ সুপার জিল্লুর রহমান মুঠোফোনে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, র‌্যাবের সদস্যদের ওপর হামলার ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। এখন পুলিশ তদন্ত করে পরবর্তী ব্যবস্থা নেবে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন