বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গত ফেব্রুয়ারি মাস থেকে মামলাটি তদন্ত করছেন পিবিআই চট্টগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মঈন উদ্দিন। তিনি আজ দুপুরে প্রথম আলোকে বলেন, গ্রেপ্তার আসামিরা জবানবন্দিতে স্বীকার করেছেন, কামরুল শিকদার ওরফে মুছার নেতৃত্বে ও পরিকল্পনায় মাহমুদাকে খুন করা হয়। কামরুলের অবস্থান নির্ণয় ও কেন খুন করেছেন, তা বের করতে আসামিদের রিমান্ডের আবেদন করা হয়।

২০১৬ সালের ৫ জুন ভোরে চট্টগ্রাম শহরের জিইসি মোড়ে ছেলেকে স্কুলবাসে তুলে দিতে যাওয়ার সময় কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করা হয় মাহমুদা খানমকে। পরে বাবুল আক্তার বাদী হয়ে অজ্ঞাতপরিচয় তিনজনকে আসামি করে পাঁচলাইশ থানায় মামলা করেন। বাবুল তখন চট্টগ্রাম থেকে বদলি হয়ে ঢাকায় পুলিশ সদর দপ্তরে এসপি (পুলিশ সুপার) পদে সংযুক্ত ছিলেন। মাহমুদা হত্যাকাণ্ডের মোড় ঘুরতে শুরু করে ২০১৬ সালের ২৪ জুন ডিবি কার্যালয়ে বাবুল আক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদের পর। এ সময় হত্যাকাণ্ডে বাবুল আক্তারের সম্পৃক্ততা রয়েছে বলে খবর ছড়িয়ে পড়ে। ওই বছরের ৬ সেপ্টেম্বর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়, বাবুলের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তাঁকে চাকরিচ্যুত করা হলো।

মাহমুদা হত্যাকাণ্ডের তিন সপ্তাহ পর মো. ওয়াসিম ও মো. আনোয়ার নামের দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাঁরা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। তাঁরা বলেন, কামরুল শিকদারের নেতৃত্বে হত্যাকাণ্ডে তাঁরা সাত থেকে আটজন অংশ নেন। বাবুল চট্টগ্রামে দায়িত্ব পালনের সময় কামরুল তাঁর ঘনিষ্ঠ সোর্স হিসেবে কাজ করতেন। তাঁর খোঁজ পায়নি পুলিশ। তবে কামরুলের স্ত্রী ঘটনার সপ্তাহখানেক পর সংবাদ সম্মেলন করে দাবি করেছিলেন, তাঁর স্বামীকে সাদা পোশাকধারী আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা ধরে নিয়ে যান। এরপর থেকে তিনি কামরুলের খোঁজ পাচ্ছেন না।

পিবিআইয়ের আগে মামলাটি নগর গোয়েন্দা পুলিশ তদন্ত করেছিল। ঘটনার এক মাসের মধ্যে হত্যাকাণ্ডে কারা জড়িত, তা বেরিয়ে আসে। কিন্তু নির্দেশদাতা কে বা কারা, তা শনাক্ত হয়নি। অপর দিকে মাহমুদার বাবা সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা মোশাররফ হোসেন অভিযোগ করছেন, তাঁর জামাই বাবুলই হত্যাকাণ্ডে জড়িত। তাঁর নির্দেশে কামরুল তাঁর মেয়েকে খুন করেন। তিনি তদন্ত কর্মকর্তা পরিবর্তন এবং নতুন করে এ মামলার তদন্তের দায়িত্ব পিবিআই কিংবা পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগকে (সিআইডি) দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছিলেন সরকারের কাছে।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন