বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে করে পিবিআইয়ের বগুড়ার পুলিশ সুপার আকরামুল হোসেন বলেন, ২০১৬ সালের ১১ জুলাই শিবগঞ্জ উপজেলার বিষ্ণপুর এলাকার একটি মেহগনিবাগান থেকে গরু ব্যবসায়ী লাবলুর লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় শিবগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা করেন লাবলুর স্ত্রী নূর জাহান খাতুন। পরে মামলার তদন্তের দায়িত্ব পায় পিবিআই।

সাংবাদ সম্মেলেনে পিবিআই জানায়, আদালতে দেওয়া স্বীকারোক্তিতে আসামি ফরিদা জানিয়েছেন, এটি পূর্বপরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। ফরিদার সঙ্গে পরকীয়া ছিল লাবলুর। এই সম্পর্কের বিষয় জানাজানির পর ফরিদার স্বামী তাঁকে তালাক দেন। স্বামী তালাক দেওয়ায় ফরিদাকে জিম্মি করে অবৈধ মেলামেশা করতেন লাবলু। একপর্যায়ে বিরোধ তৈরি হওয়ায় লাবলু সরকারকে হত্যার পরিকল্পনা করেন ফরিদা। পরিকল্পনা অনুযায়ী ২০১৬ সালের ১০ জুলাই রাত ৯টার দিকে কৌশলে লাবলু সরকারকে মুঠোফোনে শিবগঞ্জের বিষ্ণপুর গ্রামে একটি মেহগনিবাগানে আসতে বলেন। সেখানে আসার পর সহযোগীদের নিয়ে ফরিদা শ্বাস রোধ করে লাবলুকে হত্যা করে লাশ ফেলে পালিয়ে যান।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন