সাভারের বলিয়ারপুর এলাকায় ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে গত রোববার চলন্ত বাসে দুই তরুণীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ বাসচালক ও তাঁর সহকারীকে (হেলপার) গ্রেপ্তার করেছে।

ভুক্তভোগী তরুণীদের একজন সাংবাদিকদের জানান, হেমায়েতপুরের একটি পোশাক কারখানায় চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে এক তরুণ তাঁদের দুজনকে আশুলিয়ার নবীনগর বাসস্ট্যা‌ন্ডে আসতে বলেন। কথামতো রোববার সকাল সাতটার দিকে তাঁরা ওই বাসস্ট্যা‌ন্ডে এলে তাঁদের দুজনকে শুকতারা পরিবহনের একটি বাসে তোলা হয়। কিন্তু আর কোনো যাত্রী না তুলেই বাসটি সাভারের উদ্দেশে ছেড়ে আসে। এটি বলিয়ারপুর এলাকায় পৌঁছলে চলন্ত বাসের ভেতরেই ওই তরুণ ও বাসের হেলপার তাঁদের ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এ সময় তাঁদের একজন (তরুণী)বাস থেকে লাফিয়ে পড়ে চিৎকার শুরু করেন। ওই চিৎকার শুনে শিল্প পুলিশের একটি দল তাঁর কাছে সব শুনে বাসটিকে ধাওয়া করে। অবস্থা বেগতিক দেখে অপর তরুণীকে বাস থেকে ফেলে দিয়ে চালক গাড়ি নিয়ে পালানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু পুলিশ ধাওয়া করে বাসটি ধরে ফেলে।

সাভার মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আসাদুজ্জামান জানান, বাসটির চালক সাদ্দাম (২৮) ও হেলপার মাসুদকে (২৭) আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় এক তরুণীর মা মামলা করেছেন। ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে সাদ্দাম ও মাসুদকে গতকাল ঢাকার মুখ্য বিচারিক আদালতে সোপর্দ করা হলে বিচারক তাঁদের জেলহাজতে পাঠানোর আদেশ দেন।

এসআই জানান, বাস থেকে লাফিয়ে পড়ে আহত তরুণীকে নবীনগরের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন