বিজ্ঞাপন

লক্ষ্মীপুর-১ আসনের সাবেক সাংসদ এম এ আউয়াল। তাঁকে গ্রেপ্তার প্রসঙ্গে খায়রুল ইসলাম বলেন, আজ বৃহস্পতিবার ভোরে ভৈরবে অভিযান চালিয়ে সাবেক এই সাংসদকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারী ও প্রধান আসামি। এ মামলায় জড়িত অন্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। তিনি আরও বলেন, আজ বিকেল চারটায় সংবাদ সম্মেলনে এম এ আউয়ালকে গ্রেপ্তারের বিস্তারিত জানানো হবে।

এর আগে গত রোববার পল্লবীর ডি ব্লকের ৩১ নম্বর সড়কে সাহিনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। জমিসংক্রান্ত বিরোধের জেড়ে তাঁকে হত্যা করা হয়। এই দুই পক্ষ পাল্টাপাল্টি মামলাও করেছে।

পরে এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে মো. সুমন ব্যাপারী (৩৩) ও মো. রকি তালুকদারকে গ্রেপ্তার করা হয়। সুমন ব্যাপারীকে যাত্রাবাড়ী থানার রায়েরবাগ এলাকা থেকে এবং রকিকে পল্লবী থানার স্কুল ক্যাম্প কালাপানি এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এ প্রসঙ্গে পল্লবী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী ওয়াজেদ আলী প্রথম আলোকে বলেন, সাহিন উদ্দিন হত্যা মামলাটি গতকাল বুধবার ডিবিতে স্থানান্তর করা হয়েছে। তিনি বলেন, এই ঘটনায় পল্লবী থানার পুলিশ দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে। তাঁরা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তাঁদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে এম এ আউয়ালকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব।

ওসি বলেন, জমি নিয়ে বিরোধের জেরে সাহিনকে হত্যা করা হয়েছে।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন