সেলিম প্রধানের নামে-বেনামে শত কোটি টাকার সম্পদ, নিশ্চিত হয়েছে দুদক

বিজ্ঞাপন
default-image

অনলাইন ক্যাসিনো ব্যবসার হোতা সেলিম প্রধানের নামে–বেনামে প্রায় শত কোটি টাকার সম্পদ আছে। এ বিষয়ে নিশ্চিত হয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। তবে ওই সব সম্পদের নথিগত প্রমাণ তাদের হাতে আসেনি। ওই সব তথ্যের জন্য বিভিন্ন দপ্তরে চিঠি দিয়েছে সংস্থাটি। তবে প্রাথমিক অনুসন্ধানে সেলিমের ১২ কোটি ২৭ লাখ ৯৫ হাজার টাকার অবৈধ সম্পদ পেয়ে তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করেছে সংস্থাটি।

এসব তথ্য সেলিম প্রধানের বিরুদ্ধে দুদকের করা মামলার এজাহার থেকে পাওয়া। আজ রোববার সংস্থার ঢাকা–১ সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে মামলাটি করেন উপপরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান।

দুদকের মামলার এজাহারে বলা হয়, সেলিম প্রধানের আয়কর নথি ও গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, তিনি অনলাইনভিত্তিক ক্যাসিনোর মূল গডফাদার। থাইল্যান্ড থেকে বাংলাদেশে অনলাইন ক্যাসিনো ব্যবসা চালিয়ে মানি লন্ডারিংয়ের মাধ্যমে শত শত কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন তিনি। ২০১৮ সালে ক্যাসিনো মার্কেট পি-২৪ লিমিটেড নামে গেমিং কোম্পানি গঠন করেন সেলিম।

এজাহারে আরও বলা হয়, সেলিম প্রধান রূপালী ব্যাংক থেকে ১০০ কোটি টাকা ঋণ নিয়ে ঋণখেলাপি হয়েছেন। অবৈধ ক্যাসিনো ব্যবসাসহ অন্যান্য অনৈতিক ব্যবসা ও চাঁদাবাজির মাধ্যমে প্রতি মাসে অন্তত ১০০ কোটি টাকা বিভিন্ন দেশে পাচার করেছেন মর্মে সংবাদমাধ্যমে তথ্য প্রকাশিত হয় বলে এজাহারে বলা হয়েছে।

দুদক বলেছে, তাঁর বিরুদ্ধে বিভিন্ন দেশে অর্থ পাচারের অভিযোগ থাকলেও প্রাথমিক অনুসন্ধানের সময় এর পক্ষে দালিলিক প্রমাণ সংগ্রহ করা সম্ভব হয়নি। মামলার তদন্তের সময় আন্তরাষ্ট্রীয় যোগাযোগের মাধ্যমে তথ্য–প্রমাণ সংগ্রহ করে আইনের আওতায় আনা হবে।

সেলিম প্রধানের ২০১৮-২০১৯ করবষের্র আয়কর নথি পর্যালোচনায় দেখা যায়, তাঁর নিজ নামে ১১ কোটি ৬৪ লাখ ৯৫ হাজার ৬১৮ টাকার অস্থাবর সম্পদ অর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। এর মধ্যে কোম্পানির পরিচালক হিসেবে শেয়ারে বিনিয়োগ ৪ কোটি ৫৮ লাখ ৪০ হাজার টাকা, এফডিআর বিনিয়োগ ৬ কোটি ১২ লাখ ১৫ হাজার, সঞ্চয়পত্র কেনায় ব্যয় ৭৬ লাখ ৬২ হাজার এবং হাতে নগদ ও ব্যাংকে গচ্ছিত হিসেবে ঘোষিত ৬ লাখ ২৮ হাজার ৬১৮। এই টাকা অর্জনের পক্ষে কোনো সুনির্দিষ্ট বৈধ উৎস পাওয়া যায়নি। এ ছাড়া তাঁর ২০ লাখ টাকা স্থাবর সম্পদ অর্জনের তথ্য পাওয়া যায়। বিএফআইইউ থেকে পাওয়া রেকর্ডে তাঁর বিভিন্ন ব্যাংকে ৫৪ লাখ ৫০ হাজার ১৩৬ টাকার অস্থাবর সম্পদের তথ্য পাওয়া যায়, যা তিনি আয়কর নথিতে উল্লেখ করেননি। সব মিলিয়ে সেলিমের ১২ কোটি ২৭ লাখ ৯৫ হাজার ৭৫৪ টাকার সম্পদের তথ্য পাওয়া গেছে, যার পক্ষে কোনো সুনির্দিষ্ট বৈধ আয়ের উৎস নেই।
দুদক বলছে, অনুসন্ধানের সময় রাজধানীর ধানমন্ডি, গুলশান, উত্তরা, বনানীসহ একাধিক জায়গায় তাঁর বাড়ি ও ফ্ল্যাট আছে, যার বাজারমূল্য শতাধিক কোটি টাকা, যা তাঁর আয়কর নথিতে প্রদর্শন করা হয়নি।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর বিমানের একটি ফ্লাইট থেকে নামিয়ে এনে সেলিম প্রধানকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব। তাঁকে নিয়ে তাঁর অফিস ও বাসায় অভিযান চালিয়ে ২৯ লাখ ৫ হাজার ৫০০ টাকা, ৭৭ লাখ ৬৩ হাজার টাকার সমপরিমাণ ২৩টি দেশের মুদ্রা, ১২টি পাসপোর্ট, ১৩টি ব্যাংকের ৩২টি চেক, ৪৮ বোতল বিদেশি মদ, একটি বড় সার্ভার, চারটি ল্যাপটপ ও দুটি হরিণের চামড়া উদ্ধার করা হয়েছে। হরিণের চামড়া উদ্ধারের ঘটনায় বন্য প্রাণী সংরক্ষণ নিরাপত্তা আইনে তাঁকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। তাঁর বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ও মানি লন্ডারিং আইনে দুটি মামলা হয়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন