রাজশাহীর বাগমারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্মকর্তা আবদুর সাত্তারের বিরুদ্ধে তথ্য গোপন রেখে চাকরি করা ও চিকিৎসকের বাসা পুলিশের কাছে ভাড়া দেওয়ার অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে তদন্ত কমিটি। স্বাস্থ্য বিভাগীয় দলের তদন্তে এসব অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়।
বাগমারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান সহকারী কাম হিসাবরক্ষক আবদুর সাত্তারের বিরুদ্ধে গত ১৬ ডিসেম্বর ‘চিকিৎসকদের বাসভবনে পুলিশের বসবাস’ ও ১৭ জানুয়ারি ‘চাকরি উন্নয়নে বেতন নেন রাজস্বে’ শিরোনামে প্রথম আলোয় দুটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।
জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, আবদুর সাত্তারের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশিত হলে তা খতিয়ে দেখতে স্বাস্থ্য বিভাগের নির্দেশে তদন্ত কমিটি গঠিত হয়।
কমিটির সভাপতি সেরাজুল করিম বলেন, আবদুস সাত্তারের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের তদন্ত করে ১১ ফেব্রুয়ারি একটি প্রতিবেদন ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।
তদন্ত প্রতিবেদন সূত্রে জানা যায়, আবদুর সাত্তার ১৯৮১ সালে ছয় মাসমেয়াদি প্রকল্পে যোগদান করেন। পরবর্তী সময়ে তিনি রাজস্ব খাত থেকে প্রায় ৩৪ লাখ টাকা উত্তোলন করেছেন। এ ছাড়া সাত বছর ধরে চিকিৎসকদের বাসভবন পুলিশকে ভাড়া দিয়ে টাকা আত্মসাৎ করেছেন তিনি।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন