চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে হাটহাজারী ছাত্রলীগের দুই নেতা মারধর ও ছুরিকাঘাতের শিকার হয়েছেন। অভিযোগ উঠেছে, বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের শাটল ট্রেনের বগিভিত্তিক পক্ষ ‘সিক্সটি নাইন’-এর কর্মীরা তাঁদের ওপর হামলা চালান। গতকাল শুক্রবার রাত আটটার দিকে শাহজালাল হলের সামনে এ ঘটনা ঘটে।
আহত দুজন হলেন হাটহাজারী ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল ইসলাম ওরফে জনি ও সদস্য মো. মোরশেদ। তাঁদের হাটহাজারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
এদিকে দুই নেতার ওপর হামলার খবর পেয়ে হাটহাজারী ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা ক্যাম্পাসের জিরো পয়েন্ট এলাকায় অবস্থান নেন। কিছুক্ষণ পর সেখানে ‘সিক্সটি নাইন’-এর কর্মীরাও হাজির হন। দুই পক্ষের মধ্যে অবস্থান নেয় পুলিশ।
বিশ্ববিদ্যালয় সূত্র জানায়, গতকাল রাত আটটার দিকে শাহজালাল হলের সামনে নুরুল ইসলাম ও মোরশেদ আড্ডা দিচ্ছিলেন। সাড়ে আটটার দিকে সিক্সটি নাইন পক্ষের ছাত্রলীগের কর্মীদের সঙ্গে তাঁদের কথা-কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে দুজনকে মারধর করে ছুরিকাঘাত করা হয়। খবর পেয়ে হাটহাজারী ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ছুটে যান। সিক্সটি নাইনের কর্মীরাও জিরো পয়েন্ট এলাকায় অবস্থান নেন। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।
জানতে চাইলে হাটহাজারী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মুজিবুর রহমান গত রাত নয়টায় মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, ‘দুই পক্ষ জিরো পয়েন্টে অবস্থান নিয়েছে। পরিস্থিতি এখন আমাদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। আমরা অতিরিক্ত পুলিশ পাঠিয়েছি। হাটহাজারী ছাত্রলীগের দুই নেতাকে মারধরের জের ধরে এই ঘটনা ঘটে।’
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মো. আলী আজগর চৌধুরী বলেন, ‘দুই নেতাকে মারধর এবং ছুরিকাঘাত করা হয়েছে বলে আমাকে হাটহাজারী ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে। সিক্সটি নাইনের কর্মীদের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ উঠেছে। পুলিশকে আইনগত ব্যবস্থা নিতে বলেছি।’
অভিযোগের বিষয়ে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের স্থগিত কমিটির সভাপতি এবং সিক্সটি নাইনের সভাপতি মো. আলমগীর বলেন, ‘আমাদের পক্ষের কেউ এ ঘটনায় জড়িত নয়।’

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন