নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার হরণী ইউনিয়নের বয়ারচরের ফরেস্ট সেন্টার বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আহসান উল্লাহকে (৩২) গতকাল শুক্রবার মারধর করে অপহরণ করে নিয়ে গেছে সন্ত্রাসীরা। স্থানীয় সূত্র এ কথা জানিয়েছে।
স্থানীয় সূত্রের ভাষ্যমতে, সীমানা বিরোধের জের ধরে লক্ষ্মীপুরের রামগতির চরগাজী থেকে আসা সন্ত্রাসীরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে সদর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) নবজ্যোতি খীসা গতকাল সন্ধ্যায় প্রথম আলোকে বলেন, তিনি নির্বাচনী দায়িত্বে সোনাইমুড়ী উপজেলায় আছেন। খবর পাওয়ার পর অপহৃত শিক্ষককে উদ্ধারের ব্যাপারে তিনি লক্ষ্মীপুরের রামগতি থানার পুলিশের সঙ্গে কথা বলেছেন।
হরণী ইউনিয়ন পরিষদের প্রশাসক মোরশেদ আলম বলেন, গতকাল বিকেল সাড়ে চারটার দিকে ফরেস্ট সেন্টার বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আহসান উল্লাহকে বাজারে একা পেয়ে অতর্কিতে তাঁর ওপর হামলা চালায় লক্ষ্মীপুরের রামগতির চরগাজী থেকে আসা ৩৫-৪০ জন সন্ত্রাসী। তিনি বলেন, সন্ত্রাসীরা আহসান উল্লাহকে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে আহত করে। পরে সন্ত্রাসীরা আহত অবস্থায় তাঁকে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করে নিয়ে যায়। তাঁরা খবর পেয়েছেন আহসান উল্লাহকে রামগতির লোকজনের নিয়ন্ত্রণে থাকা বয়ারচরের তেগাছিয়া বাজারের উত্তর পাশে একটি বাড়িতে আটকে রাখা হয়েছে।
মোরশেদ আলম বলেন, লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার সঙ্গে হাতিয়ার সীমানা বিরোধকে কেন্দ্র করে বয়ারচরে ১০টি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ করে দেওয়ার পর এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচারে আহসান উল্লাহ সহযোগিতা করেছেন—এই অভিযোগ তুলে তাঁকে অপহরণ করা হয়েছে।
গতকাল সন্ধ্যায় হাতিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ টি এম আরিচুল হক বলেন, ‘আমি লোকমুখে শুনেছি ফরেস্ট সেন্টার বাজার থেকে এক স্কুলশিক্ষককে কারা নাকি ধরে নিয়ে গেছে। কিন্তু এ বিষয়ে নির্ভরযোগ্য কোনো সূত্রের কাছ থেকে তথ্য পাইনি। তাই ঘটনাটি সঠিক কি না, তা আমি বলতে পারছি না।’
রামগতি উপজেলার সঙ্গে হাতিয়ার সীমানা বিরোধকে কেন্দ্র করে গত ১৯ থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে বয়ারচরে ১০টি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ করে দেয় সন্ত্রাসীরা। এ বিষয়ে হাতিয়া থানায় জিডি করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন