লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলা বিএনপির দুই পক্ষে সংঘর্ষ হয়েছে। গতকাল কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দেওয়া নিয়ে এ ঘটনা ঘটে। এতে পাঁচজন আহত হন। পুলিশ যুবদলের একজন নেতাকে আটক করেছে।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, গতকাল সকালে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে উপজেলার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দেওয়া নিয়ে জেলা বিএনপির সহসভাপতি ও সাবেক সাংসদ জয়নুল আবেদিন সরকারের ছেলে সায়েদুজ্জামানের সঙ্গে উপজেলা বিএনপির সদস্যসচিব আফজাল হোসেন ও জেলা বিএনপির সদস্য রফিকুল ইসলামের সঙ্গে বচসা হয়। এ নিয়ে দুই পক্ষের নেতা-কর্মীদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটলে নেতারা তাৎক্ষণিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন। পরে শহীদ মিনার থেকে দলীয় কার্যালয়ে ফিরে গেলে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে বিএনপির সহযোগী সংগঠনের চার নেতা-কর্মী গুরুতর আহত হন। এ সময় লাঞ্ছিত করা হয় উপজেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক রফিকুল ইসলামকে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এর আধঘণ্টা পর উপজেলা শহরের মেডিকেল মোড় এলাকায় ফের সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন নেতা-কর্মীরা। এ সময় শ্রমিক দলসমর্থিত বাসচালক কাঞ্চনের মাথায় আঘাত লাগে। পরে তাঁকে গুরুতর অবস্থায় হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে উপজেলা যুবদলের প্রচার সম্পাদক ইউনুছ আলীকে আটক করে।
হাতীবান্ধা থানার ওসি জাকির হোসেন বলেন, এখন পর্যন্ত কোনো পক্ষই থানায় অভিযোগ করেনি।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন