বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তবে এই বেঞ্চের বিচারিক এখতিয়ার পরিবর্তন হওয়ায় ডেথ রেফারেন্স ও আপিলের শুনানি এগোয়নি বলে জানান ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বশির আহমেদ। আজ শনিবার তিনি প্রথম আলোকে বলেন, বিচারপতি সহিদুল করিমের নেতৃত্বাধীন দ্বৈত বেঞ্চের কার্যতালিকায় ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলার ডেথ রেফারেন্স ও আপিল শুনানির জন্য রয়েছে। আদালত শুনানির দিন ধার্য করে দিলে শুনানি শুরু হবে।

আলোচিত এই মামলায় ২০১৪ সালের ৩০ জানুয়ারি চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ আদালত ও বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-১ রায় দেন। ওই বছরের ৬ ফেব্রুয়ারি বিচারিক আদালতের রায়সহ মামলার নথিপত্র হাইকোর্টের ডেথ রেফারেন্স শাখায় পৌঁছায়, যা ক্রমিকের (৭/২০১৪) মধ্য দিয়ে ডেথ রেফারেন্স মামলা হিসেবে নথিভুক্ত হয়।

বিচারিক আদালতে কোনো মামলায় আসামির মৃত্যুদণ্ড হলে তা কার্যকর করতে হাইকোর্টের অনুমোদন লাগে, যা ডেথ রেফারেন্স মামলা হিসেবে পরিচিত। এ ছাড়া দণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে আসামিদের আপিল করার সুযোগ রয়েছে। সাধারণ ডেথ রেফারেন্স ও আসামিদের আপিলের ওপর একসঙ্গে শুনানি হয়ে থাকে।

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে ২০০৪ সালের ১ এপ্রিল সিইউএফএল ঘাট থেকে ১০ ট্রাকভর্তি অস্ত্রের চালান আটক করা হয়। এ নিয়ে কর্ণফুলী থানায় ১৮৭৮ সালের অস্ত্র আইন ও ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে চোরাচালানের অভিযোগে দুটি মামলা হয়।

মামলায় বিচারিক আদালতের রায়ে সাবেক শিল্পমন্ত্রী ও জামায়াতে ইসলামীর সাবেক আমির মতিউর রহমান নিজামী, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুত্ফুজ্জামান বাবর, ভারতের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন উলফার সামরিক কমান্ডার পরেশ বড়ুয়া, দুটি গোয়েন্দা সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ ১৪ জনকে ফাঁসির আদেশ দেওয়া হয়। মৃত্যুদণ্ডের পাশাপাশি প্রত্যেক আসামিকে পাঁচ লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়। ইতিমধ্যে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় দণ্ডিত হয়ে নিজামীর ফাঁসি কার্যকর হয়েছে।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন