default-image

ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (ডিপিডিসি) কর্তৃপক্ষের অধীন লালবাগ এলাকার এক গ্রাহক ১০ বছর বিদ্যুৎ বিল না দিলেও নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পাচ্ছেন। তাঁর কাছে ডিপিডিসির পাওনা ১ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) অভিযানেও এ তথ্য পাওয়া গেছে।

আজ সোমবার দুদকের ঢাকা-১ সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. মনিরুল ইসলামের নেতৃত্বে একটি দল সেখানে অভিযান চালায়। সংস্থার মুখপাত্র প্রণব কুমার ভট্টাচার্য প্রথম আলোকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, স্থানীয় এক প্রভাবশালী ব্যক্তি গত ১০ বছর কোনো বিল না দিলেও ডিপিডিসি কর্তৃপক্ষ তাঁর সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেনি বলে দুদকের হটলাইনে অভিযোগ আসে। অভিযোগ পেয়ে দুদকের অভিযান চালানো হয়।

দুদক জানিয়েছে, অভিযানে গিয়ে দুদক জানতে পারে, ওই প্রভাবশালী ব্যক্তি ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ২৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ওমর-বিন-আবদাল আজিজ। ডিপিডিসি দুদককে জানিয়েছে, ওই ব্যক্তি আদালতে আবেদনের মাধ্যমে তাঁর বিদ্যুৎ–সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা এবং বিল দেওয়া থেকে নিজেকে বিরত রেখেছেন। দুদকের দলটি বকেয়া আদায়ে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা নিতে ডিপিডিসিকে অনুরোধ জানিয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ওমর-বিন-আবদাল আজিজ প্রথম আলোকে বলেন, ভুয়া একটি হোল্ডিং নম্বরের ভুয়া বিল আমাদের ২৭টি পরিবারের ওপর চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছিল ডিপিডিসি। সে কারণে ২৭টি পরিবারের পক্ষ থেকে উচ্চ আদালতে একটি রিট আবেদন করা হয়েছে। আদালত আবেদনটি যুক্তিযুক্ত মনে করায় বিষয়টি নিয়ে স্থিতাবস্থা দিয়েছেন। আদালতেই বিষয়টির নিষ্পত্তি হবে।

উত্তরখান ভূমি অফিসে অভিযান
রাজধানীর উত্তরখানে ভূমি নামজারিতে হয়রানির অভিযোগ পেয়ে সেখানে আলাদা অভিযান চালায় দুদক। সহকারী পরিচালক মঈনুল হাসান রওশনী ও উপসহকারী পরিচালক সোমা হোড়ের সমন্বয়ে একটি দল ওই অভিযান চালায়।

দুদক জানিয়েছে, তিন মাস আগে জমির নামজারির আবেদন করলেও নানা টালবাহানা করে অভিযোগকারীর আবেদনটি ফেলে রাখা হয়। এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্যানুসন্ধানে উত্তরখান ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তার গাফিলতির প্রমাণ পায় দুদক দল। দুদক দলের পর্যবেক্ষণের পরিপ্রেক্ষিতে তাঁকে তাৎক্ষণিকভাবে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়। ক্যান্টনমেন্ট রাজস্ব সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) অবিলম্বে অভিযোগকারীর নামজারির কার্যক্রম শেষ হবে মর্মে দুদক দলকে জানান।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0